স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: করোনাভাইরাস সংক্রমণ রুখতে দেশজুড়ে লকডাউন চললেও এরাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী নিজেই সেই আইন মানছেন না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে এমনই গুরুতর অভিযোগ করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তাঁর প্রশ্ন মুখ্যমন্ত্রী নিজে আইন ভাঙলে সাধারণ মানুষ কেন আইন মানবে? করোনাভাইরাসের জেরে লকডাউন শুরু হতেই রাস্তায় নেমেছেন মুখ্যমন্ত্রী। স্বাস্থ্যকর্মী থেকে সাধারণ মানুষকে ভরসা জোগাতে কখনও হাসপাতালে আবার কখনও বাজারে গিয়ে অভাব অভিযোগ শুনছেন। কখনও আবার বিতরণ করছেন খাদ্যসামগ্রী।

একটি ভিডিও বার্তায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই তৎপরতারই সমালোচনা করলেন দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, “করোনাভাইরাসের সংক্রমণে বিশ্বের উন্নত সব দেশও শ্মশানে পরিণত হয়েছে। সেকথা জেনেও মুখ্যমন্ত্রী রোজ রাস্তায় বেরোচ্ছেন। সঙ্গে লোক নিয়ে ঘুরছেন। মুখ্যমন্ত্রীর রাস্তায় বেরিয়ে খাবার বিতরণ করার দরকার নেই, লোককে বোঝানোর দরকার নেই। সেজন্য সরকারি কর্মচারীরা রয়েছেন। ক্লাব রয়েছে, স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা রয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী নিজে আইন ভাঙলে সাধারণ মানুষ কেন আইন মানবে?”

দিলীপ ঘোষের দাবি, “রাজ্যের সংখ্যালঘু অধ্যুষিত এলাকাতেও লকডাউন মানা হচ্ছে না । সেখানে প্রচুর মানুষ রাস্তায় ভিড় করছেন।” প্রসঙ্গত, ভাইরাস সংক্রমণ দিনে দিনে ভারতে বেড়েই চলছে। সংক্রমণ ঠেকাতে দেশজুড়ে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে অনেকেই বিধিনিষেধ মেনে না চলায় তা নিয়ে ইতিমধ্যেই উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি জানিয়েছেন, করোনা ভাইরাসের বিধিনিষেধের মধ্যেও এখনও অনেকে এই পরিস্থিতিকে গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করছেন না। ফলে দেশের সকল নাগরিককে করোনা ভাইরাসের জন্য প্রয়োজনীয় সতর্কতা বজায় রেখে চলার আহবান জানিয়েছেন তিনি।

গত সোমবার টুইট বার্তায় লিখেছিলেন, “অনেক মানুষ এখনও লকডাউনকে গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করছেন না। দয়া করে নিজেকে বাঁচান, আপনার পরিবারকে বাঁচান, এই নির্দেশগুলোকে গুরুত্ব দিয়ে অনুসরণ করুন। আমি রাজ্য সরকারগুলোকেও অনুরোধ করছি যাতে সব রাজ্যগুলোতেই এই সব নির্দেশিকা মেনে চলার বিষয়টি নিশ্চিত করা যায়।” বিজেপির রাজ্যে সভাপতি আরও একবার সতর্ক করে বলেছেন, “ভাইরাস জাতি ধর্ম চেনে না। তাই সংক্রমণ ছড়ালে নিজের তো ক্ষতি হবেই, ক্ষতি হবে অন্যদেরও। তাই বাড়িতে থাকুন।”