স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: মঙ্গলবার মুকুল রায় বলেছিলেন তাকে আক্রমণ করা হতে পাবে৷ রাজ্যে তৃণমূলের বিধায়ক খুনের ঘটনায় মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে৷ শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস বিজেপি এবং মুকুলকেই কাঠগড়ায় তুলতে চাইছে৷ ঠিক এই পরিস্থিতিতে রাজ্য বিজেপির সবাপতি দিলীপ ঘোষ মঙ্গলের পড়ন্ত বেলায় মুকুলের হয়ে ব্যাট ধরেছেন৷

দিলীপে দাবি মুকুল রায়ের সাবধান হওয়া উচিত৷ কারণ যেদিন থেকে নদীয়ার কৃষ্ণগঞ্জের বিধায়ক সত্যজিৎ বিশ্বাস খুন হয়েছেন, সেদিন থেকেই নাকি বিজেপিকে এবং মুকুল রায়কে ‘টার্গেট’করা হয়েছে৷ তৃণমূলের ‘ছোট-বড়-হাল্কা-ভারী’নেতারা মানুষকে উস্কে প্রতিশোধের পরিবেশ তৈরি করার চেষ্টা করেছেন৷ তাঁরা অযোগ্য তা প্রমাণ করেছেন৷ নিজেরা সরকারে থেকে নিজেদের চেয়ারম্যানকে, বিধায়ককে রক্ষা করতে পারছেন না৷ ওরা সিকিউরিটি নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন৷ সেই অযোগ্যতার দায়িত্ব আমাদের ঘারে চাপাতে চাইছেন৷

দিলীপের আরও দাবি, তিনি নাকি তিন-চার দিন ধরে দেখছেন যুব নেতা সত্যজিৎ খুন হয়ওয়ার পরেও তৃণমূল কংগ্রেসের কোনও দুঃখ নেই৷ বরং প্রতিহিংসা ছড়াতে চাইছে শাসক দল৷ দুঃখের বিষয় ওই বিধায়ককে নিরাপত্তা দেওয়া যায়নি৷ আসল যে দোষী সে পালিয়ে গিয়েছে৷ পুলিশ দু’জনকে ঘরে নিয়ে গিয়েছে৷ জোর করে বোঝানোর চেষ্টা হয়েছে যে বিজেপি খুন করেছে৷ পাবলিক গিয়ে তার বাড়ি ভেঙে দিয়েছে, কিন্তু পুলিশ তার গায়ে হাত দিচ্ছে না৷ দিলীপ বলছেন, যার অর্থ হল, আসল দোষীকে আড়াল করার চেষ্টা হচ্ছে৷ বিজেপি এবং মুকুল রায়ের প্রতি প্রতিহিংসা ছড়ানোর চেষ্টা হচ্ছে৷

দিলীপ তৃণমূলকে জানাতে চান, যদি তারা বিজেপিকে এই এভাবে বদনাম করতে চায় এবং প্রতিহিংসার আগুন জ্বালাতে চায়, ফল তাদেরই ভোগ করতে হবে৷ জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বা ববি হাকিমের মতো রাজ্যের মন্ত্রীদের দিলীপ হুমকির সুরে বলেছেন যে যারা বারবার তার নাম নিচ্ছেন, বিজেপির নাম নিচ্ছেন বা মুকুল রায়ের নাম নিচ্ছেন – যদি কোনও বিজেপি কর্মীর গায়ে হাত পড়ে, শুধু নদিয়া বা উত্তর ২৪ পরগণাই নয়, সারা বাংলায় আগুন জ্বালাবে বিজেপি৷ কাকে প্রতিহিংসা বলে, তখন দেখতে পাবে মন্ত্রীরা৷

মঙ্গলবার ক্যামেরার সামনেই দিলীপ ঘোষ রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে হুমকির দেন৷ জ্যোতিপ্রিয় কতবড় মন্ত্রী তা দেখতে চেয়ে দিলিপ হুঙ্কার মন্ত্রীর গাড়ি তিনি রাস্তায় আটকাবেন এবং জলও খেতে দেবেন না৷ তৃণমূলের যেন মনে থাকে আগুনটা ভেবেচিন্তে লাগাতে হবে৷ আগুন লাগলে তৃণমূলের বাড়িতেই আগুন লাগবে৷ বিজেপির সহ্যের সীমা আছে, মানসম্মান আছে৷ এরপর খাদ্যমন্ত্রীকে বেনজির ভাবে আক্রমণ করে দিলীপ ঘোষণা করেছেন জ্যোতিপ্রিয়র মন্ত্রিত্ব গুটিয়ে নেওয়া হবে, জামাকাপড় খুলে নেওয়া হবে৷

থেমে থাকেননি মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয়ও৷ দিলীপ ঘোষকে অশিক্ষিত, বর্বর, মুর্খ বলে ব্যাখ্যা দিয়েছেন জ্যোতিপ্রিয়৷ দিলীপ যদি রাস্তায় নামেন তবে জ্যোতিপ্রয় তার কত ক্ষমতা বুঝে নিতে চান৷ বুধবার সকালেই দিলীপের বিরুদ্ধে থানায় এফআইআর করবেন জ্যোতিপ্রিয়৷ খাদ্যমন্ত্রী ব্যাখ্যা অনুযায়ী ২০১৯ সালের মে মাসের পর দিলীপকে বাংলা ছেড়ে পালাতে হবে৷ দিলীপকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে খাদ্যমন্ত্রী ব্যাখ্যা বিধায়ক সত্যদিতকে বিজেপি এহবং মুকুল রায় খুন করেছে৷ বুকে হাত দিয়ে দিলীপ ঘোষের সত্যটা স্বীকার করা উচিত৷

 

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ