কলকাতা: আবারও বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষর নিশানায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ‘মুখ্যমন্ত্রী নিজেই লকডাউন মানেননি, রাজনৈতিক কারণেই বারবার লকডাউনের সিদ্ধান্ত’, এভাবেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমালোচনায় দিলীপ ঘোষ। করোনা মোকাবিলায় রাজ্যে কখনই লকডাউন পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে মানা হয়নি বলেও অভিযোগ করেন দিলীপ ঘোষ।

করোনার করাল গ্রাসে গোটা দেশ। মাত্রাছাড়া সংক্রমণ এরাজ্যেও। বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী পশ্চিমবঙ্গে নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ২৪ হাজার ৮২৩। রাজ্যে করোনায় মৃত বেড়ে ৮২৭। প্রতিদিন লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। রাজ্যে করোনার সংক্রমণে লাগাম পরাতে বৃহস্পতিবার থেকেই রাজ্যের কন্টেনমেন্ট জোনগুলিতে নতুন করে লকডাউন কার্যকর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার।

রাজ্যের এই সিদ্ধান্তকেই কটাক্ষ করেছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তাঁর অভিযোগ, ‘বাংলায় কখনই লকডাউন সঠিকভাবে হয়নি। মুখ্যমন্ত্রী নিজেই লকডাউন মানেননি। শুধু লকডাউন ঘোষণাই নয়, কড়াকড়িও চাই। তা না হলে লাভ কিছু হবে না। রাজনৈতিক কারণেই বারবার লকডাউনের সিদ্ধান্ত।’ বৃহস্পতিবার এভাবেই রাজ্য সরকারকে বিঁধলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি।

বুধবার নবান্নে রাজ্যে লকডাউনের এলাকা নির্ধারণ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর রোষের মুখে পড়েন মুখ্যসচিব, স্বরাষ্ট্রসচিবরা। সাংবাদিক সম্মেলন চলাকালীন এবিষয়ে ক্ষোভ উগরে দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

দক্ষিণ ২৪ পরগনার যে এলাকাগুলিকে আগে লকডাউন করা হবে বলে তালিকা তৈরি হয়েছিল, সেই তালিকা দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। এমনকী প্রকাশ্যেই আমলাদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা যায় মুখ্যমন্ত্রীকে।

এদিন এই বিষয়টি নিয়েও মুখ খোলেন দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, ‘বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কথা বলে মুখ্যসচিব, স্বরাষ্ট্রসচিবরা যেটা ঠিক করেছিলেন, উনি সেটা এক মুহূর্তে পাল্টে দিলেন। এর কোনও মানে হয় না। রাজনৈতিকভাবে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে। কোনও ফল পাওয়া যাবে না।’

প্রশ্ন অনেক: তৃতীয় পর্ব