কলকাতা: রবীন্দ্র ভারতীর বসন্ত উৎসব উঠে এসেছে আলোচনার শীর্ষে। ছাত্রীদের পিঠে লেখা অশ্লীল শব্দ ঘিরে তীব্র বিতর্ক। আর সেই বিতর্কে মুখ খুলতে গিয়ে ফের বেফাঁস মন্তব্য করলেন দিলীপ ঘোষ।

তিনি বলেন, এই ধরনের আচরণ সংস্কৃতির অপমান। তাঁর দাবি, রাজ্যে যে বিক্ষোভ হচ্ছে, তাতে নাকি মেয়েদের ড্রাগ খাইয়ে আন্দোলনে নামাও হচ্ছে। স্বাভাবিকভাবেই তাঁর এই মন্তব্যের তীব্র নিন্দা করেছেন বিরোধীরা। এতে মহিলাদেরই অপমান করা হচ্ছে বলে উল্লেখ করেছেন ফিরহাদ হাকিম।

বিজেপির রাজ্য সভাপতি আরও বলেছেন, মহিলারা যে ধরনের ব্যবহার করছেন, এতে তাঁরা যে কোনও জায়গায় হিংসার শিকার হতে পারে। সমাজের অবস্থায় কোথায় গিয়েছে, তা ভাবতে হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। উল্লেখ্য, নাগরিকত্ব আইনের পর থেকেই কলকাতার বিভিন্ন জায়গায় এখনও জারি বিক্ষোভ। অংশ নিয়েছেন মহিলারাও।

কিছুদিন আগে দিল্লির রেজাল্টের পরের দিনই বাংলায় সিএএ-এর সমর্থনে পথে নেমেছিলেন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সেই পদযাত্রা থেকেই রীতিমতো হুঁশিয়ারি মেশানো সুরে তিনি আওয়াজ দেন, ‘এই বাংলায় শুধু জয় শ্রীরাম শোনা যাবে, বন্দে মাতরম শোনা যাবে। সেই দিন আসছে।’

উল্লেখ্য, দিল্লিতে ফলাফল ঘোষণার পরের দিন জলপাইগুড়িতে সিএএ-এর সমর্থনে মিছিল করেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সেখানেই ‘জয় শ্রীরাম’ প্রসঙ্গ তোলেন তিনি। একই সঙ্গে ছত্রধর মাহাতোর তৃণমূলে যোগদান নিয়েও কটাক্ষ করতে ছাড়েননি বঙ্গ বিজেপির সভাপতি। এ প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীকে আক্রমণ করে তিনি বলেন, ‘মমতার আত্মবিশ্বাস নেই, তাই জেল থেকে চুল পড়ে যাওয়া কাউকে ছাড়িয়ে আনতে হয়েছে।’