স্টাফ রিপোর্টার, রায়গঞ্জ: লকডাউন নিয়ম অমান্যের অভিযোগে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ-সহ দলের অন্তত ১০০০ জনের বিরুদ্ধে মহামারী আইনে মামলা দায়ের করতে চলেছে রায়গঞ্জ পুলিশ।

জেলা পুলিশ সূত্রে এই খবর পাওয়া গিয়েছে। হেমতাবাদের প্রয়াত বিজেপি বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায়ের স্মরণসভায় পুলিশের অনুমতি ছাড়াই অতিরিক্ত জমায়েত হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে জেলা পুলিশের এই সিদ্ধান্ত।

পুলিশ সূত্রে খবর, মহামারী আইন মামলার তালিকায় রয়েছেন বিজেপির রাজ্যের সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু, রায়গঞ্জের জেলা বিজেপি সভাপতি বিশ্বজিৎ মণ্ডল, বালুরঘাটের সাংসদ সুকান্ত মজুমদার। করোনা আবহে কেউ লকডাউনের নিয়ম ভাঙলে তাঁর বিরুদ্ধে ব্রিটিশ আমলের মহামারী আইন লাগু করার সিদ্ধান্ত কার্যকর করেছে রাজ্য সরকার।

এবার সেই আইনেরই প্যাঁচে পড়লেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি সহ দলের ১০০০ জন। হেমতাবাদের বিজেপ বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায়ের মৃত্যুর সিবিআই তদন্তের দাবিতে মামলা চলছে সুপ্রিম কোর্টে। ঘটনা প্রায় একমাস পর হেমতাবাদে গেলেন দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। করোনা আতঙ্কের মাঝেই কয়েক হাজার মানুষ রীতিমতো মিছিল করে তাঁকে নিয়ে গেলেন বিধায়কের বাড়িতে।

মৃত বিধায়কের পরিবারের সঙ্গে দেখা করার পর কালীবাড়িতে স্মরণসভা যোগ দেন দিলীপ ঘোষ। অভিযোগ, জনপ্রিয় বিধায়কের স্মরণসভায় ভালই জনসমাগম হয়েছিল। মানা হয়নি ন্যূনতম স্বাস্থ্যবিধি, অনেকের মুখে মাস্ক ছিল না বলে অভিযোগ।

জেলা পুলিশের সুমিত কুমারের দাবি, রায়গঞ্জ বিএড কলেজে দেবেন্দ্রনাথ রায়ের স্মরণসভার জন্য বিজেপি যে আবেদন করেছিল, তা খারিজ করে দেওয়া হয়েছে। নতুন কোনও জায়গায় স্মরণসভার জন্য অনুমতিও দেওয়া হয়নি।

মঙ্গলবার সকালে রায়গঞ্জ থানার আইসি সুরজ থাপা জেলা পুলিশ দফতরে দিলীপ ঘোষ-সহ সভায় উপস্থিত অনেকের বিরুদ্ধে মহামারী আইনে অভিযোগ দায়ের করেন। তা খতিয়ে দেখে এবার মামলা দায়ের করা হবে বলে জানিয়েছেন জেলা পুলিশ সুপার।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও