ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: লকডাউন চলাকালীন রাজ্যের কোনও মানুষ অভুক্ত থাকবেন না। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই আশ্বাস দিয়েছেন। তাই যাঁদের ডিজিটাল রেশন কার্ড নেই, তাঁদের বিকল্প ফুড ‘কুপন’ বিলি করে খাদ্যশস্য দেওয়া হবে। খাদ্য দফতর জানিয়েছে, ১০ এপ্রিলের মধ্যে কুপন বিলি শেষ হলেই সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের খাদ্যশস্য দেওয়া হবে। গত শনিবার এই কুপন নিয়ে খাদ্য ভবনে বৈঠক করেন বিভাগীয় মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক ।

জানা গিয়েছে, এই কুপনে লেখা থাকবে গ্রাহকের নাম, ঠিকানা। সেইসঙ্গে ওই গ্রাহক কোন রেশন দোকান থেকে পণ্য সংগ্রহ করবেন তাও লেখা থাকবে। এছাড়া তিনি গণবন্টনের কোন প্রকল্পের আওতায় রয়েছেন উল্লেখ থাকবে সেই বিষয়টিরও। এই কুপনের দুটি অংশ থাকবে। পণ্য নেওয়ার সময় এক অংশ নিয়ে নেবে রেশন ডিলার। এবং গ্রাহককে সেই অংশে স্বাক্ষর করে দিতে হবে। আরেকটি অংশ থাকবে গ্রাহকের কাছে। খাদ্য দফতরের নির্দেশে জেলাশাসকের সই করা ফুড কুপন বিলির কাজ ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে।

রাজ্যের খাদ্য ও সরবরাহ বিভাগ সূত্রে জানা গিয়েছে, রেশনের বিশেষ প্যাকেজ আগামী ছ’মাস অর্থাত তিরিশ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেওয়া হবে। ফলে এই কুপনের বৈধতা থাকবে আগামী ছ’মাস। তবে যাঁদের রেশন কার্ড আছে তাঁদেরও কুপন দেওয়া হচ্ছে রেশন দোকান থেকে। তার কারণ, ভয়াবহ করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অত্যন্ত জরুরি কৌশল হল ভিড় এড়িয়ে চলা।

অথচ এই দুঃসময়ে খাদ্যসামগ্রী সংগ্রহের জন্য অনেক ক্ষেত্রেই জনতা হামলে পড়ছে রেশন দোকানে। কিন্তু পারস্পরিক দূরত্ব বজায় রাখতে না-পারলে এই রোগের সংক্রমণ এড়ানো কঠিন। এই অবস্থায় ভিড় ঠেকাতে সব রেশন দোকানকে উপভোক্তাদের সময় লেখা স্লিপ বা চিরকুট বিলির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এখন রবিবার-সহ সপ্তাহে প্রতিদিন রেশন দোকান খোলা থাকছে। দু’‌বেলা দোকানগুলি থেকে রেশন বিলির কাজ চলছে। দোকানে আসা উপভোক্তাকে স্লিপের মাধ্যমে তাঁর খাদ্যশস্য পাওয়ার সময় জানিয়ে দিতে বলা হয়েছে। এই নির্দেশ মানা হচ্ছে কি না, তা দেখার ভার দেওয়া হয়েছে স্থানীয় পুলিশ-প্রশাসনকে।