মেদিনীপুরঃ  হাওড়া-দিঘা কান্ডারি এক্সপ্রেসে দিঘা যাওয়ার পথে তমলুক স্টেশনে আটক দুই ফরাসি পর্যটক। প্রশাসনের উদ্যোগে পরীক্ষা করা হয় তমলুক জেলা হাসপাতালে। এভাবে দিঘা যাওয়ার পর দুই বিদেশিকে আটকের ঘটনায় তীব্র আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। জানা যাচ্ছে আপাতত তাদেরকে নজরের মধ্যে রাখা হয়েছে। কিন্তু তেমন কিছু তাদের শরীরে কিছু পাওয়া যায়নি।

গত ৮ই মার্চ ভারতে আসেন দুই ফরাসি নাগরিক। বুধবার দুপুরে কান্ডারী এক্সপ্রেসে করে দিঘা যাচ্ছিল তারা। রেলপুলিশের তরফে ওই দুই নাগরিকের পরিচয় জানার পর তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করতে সচেষ্ট হয় রেল। খড়গপুর থেকে তড়িঘড়ি বিষয়টি জানানো হয় তমলুক স্টেশনে। ট্রেনটি তমলুক স্টেশনে পৌঁছতে সচেষ্ট হয় রেল পুলিশ। তৎক্ষনাৎ তারা দুই ফরাসি নাগরিককে ট্রেন থেকে নামিয়ে আনেন।

এরপর খবর দেওয়া হয় জেলা পুলিশ প্রশাসনকে। জেলা শাসক পার্থ ঘোষের নির্দেশে তমলুকের মহকুমাশাসক তমলুক স্টেশনে পৌঁছয় অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে। তড়িঘড়ি দুই ফরাসি নাগরিককে তমলুক জেলা হাসপাতালে এনে পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষা করা হলে চিকিৎসকরা ফরাসি নাগরিকদের থেকে কোনরকম করোনা ভাইরাস আক্রান্তের কিছুই পাননি।

প্রসঙ্গত, করোনা ভাইরাস নিয়ে বিশ্বজুড়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। অন্যান্য অনেক দেশের মতোই করোনা থাবা বসিয়েছে ভারতে। বেড়ে চলেছে আক্রান্তের সংখ্যা। চিন্তিত গোটা দেশ। ক্রমেই আতঙ্ক বাড়াচ্ছে মারণ করোনা। এ রাজ্যে করোনার সংক্রমণ রুখতে একাধিক পদক্ষেপ নিয়েছে রাজ্য সরকার। ইতিমধ্যেই ১৫ এপ্রিল স্কুল কলেজ বন্ধ রাখার ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। করোনার জেরে বুধবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য উত্তরবঙ্গের সমস্ত অভয়ারণ্য বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য বন দফতর।

সংক্রমণ এড়ানোর জন্য বন্ধ করা হচ্ছে একের পর এক পর্যটনকেন্দ্র। সেই পথে হেঁটেই এবার বাঙালির বহুদিনের প্রিয় ভ্রমণক্ষেত্র দার্জিলিঙে পর্যটকদের প্রবেশ নিষিদ্ধ হল। এই সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করে জিটিএ। নতুন করে যাতে কোনও রকম হোটেল এবং হোমস্টে-র জন্য বুকিং না নেওয়া হয়, তার জন্য বুধবার জিটিএ-র পক্ষ থেকে পর্যটন ব্যবসায়ী এবং সংগঠনের কাছে অনুরোধ করা হয়। অন্যদিকে, কলকাতাতেও আগাম ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। সমস্ত স্কুল-কলেজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বেসরকারি সংস্থাগুলিও ওয়ার্ক ফর্ম হোমের দিকেই ঝুকেছে। সর্বত্রই সতর্কতা চলছে।