নয়াদিল্লি: শুধু টানা ১৮ দিন ধরে তেলের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে এমন নয়, পাশাপাশি পেট্রোলের থেকে ডিজেলের দাম বেড়ে নজির সৃষ্টি করলো। বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে খবর ইতিহাসে এই প্রথম এমন ঘটনা ঘটলো যে পেট্রোলের চেয়ে ডিজেলের দাম বেশি হয়ে গেল। দেশের রাজধানীতে লিটার প্রতি ৪৮ পয়সা ডিজেলের দাম বাড়ায়, তা পেট্রোলের চেয়ে ১২ পয়সা বেশি দামী হয়ে গেল। দিল্লিতে প্রতি লিটার ডিজেলের দাম হয়েছে ৭৯.৮৮ টাকা অন্যদিকে প্রতি লিটার পেট্রোলের দাম ৭৯.৭৬ টাকা।

তবে অন্যান্য রাজ্যে ডিজেলের দাম বাড়লেও তা পেট্রোলের দামের চেয়ে এখনও সস্তা রয়েছে‌ কারণ সেখানে শুল্কের হার কম। তবে এখন দেশের অন্যত্র পেট্রোল এবং ডিজেলের দামে গলায় গলায় লড়াই চলছে।

গত মাসেই সংবাদমাধ্যম এমন আশঙ্কা করেছিল জ্বালানি তেলের দাম শীঘ্রই দিল্লিতে ৮০ টাকা হতে পারে। কোন কোন রাজ্যে ইতিমধ্যেই তা বিক্রি হচ্ছে। পেট্রোল ডিজেলের এমন দাম বাড়ার কারণ হল উচ্চ হারে শুল্ক বসানো হয়েছে । যার জন্য করোনা পূর্ববর্তী সময়ের অপরিশোধিত তেলের দামের মতোই হয়ে যাচ্ছে।

পাশাপাশি অবশ্যই রয়েছে দুর্বল টাকা। যেখানে এখন ‌গোটা বিশ্ব জুড়ে সরবরাহের প্রয়োজন কমায় অপরিশোধিত তেলের দাম অনেকটাই কমে গিয়েছে। এই অবস্থায় বিজেপি সরকার জ্বালানি তেলের উপর শুল্ক চাপিয়ে আয় বাড়াতে চেয়েছে। বর্তমানে সরকার ডিজেলের উপর ২৫৬ শতাংশ এবং পেট্রোলের উপর ২৫০ শতাংশ কর আদায় করছে।

লকডাউন শেষ হওয়ার পর ভারতে রাষ্ট্রায়ত্ত তেল বিপণন সংস্থাগুলি হুল্লোড়ের ঢঙে তেলের দাম বাড়িয়ে তারা যেন করোনা মহামারীর সময়কার খুচরো দামের মধ্যে একটা সমন্বয় আনতে চাইছে। গত ১৮ দিনে রাজধানীতে পেট্রোল এবং ডিজেলের দাম বেড়েছে যথাক্রমে ১০.৪৮ টাকা এবং ৮.৫০ টাকা।

এদিকে জ্বালানি তেলের দাম গত ১৮ দিনে যেভাবে বেড়েছে তার জন্য ইতিমধ্যেই কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের সমালোচনা করতে দেখা গিয়েছে কংগ্রেস সহ অন্যান্য বিরোধী দলগুলিকে। কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কাছে আর্জি জানিয়েছেন, জ্বালানি তেলের দাম নিয়ন্ত্রণের জন্য।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ