স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: ‘টিট ফর ট্যাট’৷ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে স্পষ্ট ভাষায় সেটা বুঝিয়ে দিলেন বিজেপি নেতা অনুপম হাজরা৷ তাঁর কথায়, মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যের কোনও অনুষ্ঠানে রাজ্যপালকে আমন্ত্রণ করেন না বলেই তাঁকে ডাকা হয়নি৷

ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি বলে অভিযোগ করে রাজ্য। এমনকি পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, মুখ্যসচিব কাউকেই আমন্ত্রণ জানানো হয়নি বলে রাজ্যের তরফে দাবি করা হয়। এই অভিযোগকে ঘিরে ফের রাজ্য-কেন্দ্র সংঘাত তীব্র হয়েছে।

জানা যায়, স্থানীয় সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদার ও বিধায়ক সুজিত বসুকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ না জানানোর অভিযোগে রাজ্যের তরফে বয়কট করা হয় ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান।

যদিও শাসক দল ও রাজ্য সরকারের এই অভিযোগকে আমল দিতে চাইছে না বিজেপি নেতারা৷ এদিন অনুপম হাজরা বলেন, “উনি রাজ্যপালকে ডাকেন না, তাই আমরা ওনাকে ডাকিনি৷ এটা ওনার কাছ থেকেই শেখা৷” উল্লেখ্য, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় সহ বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে আমন্ত্রণ ছিলেন না রাজ্যপাল৷

এব্যাপারে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, “রেলমন্ত্রী থাকার সময় বাংলার কোনও প্রকল্পের উদ্বোধনে তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যকে আমন্ত্রণ করেননি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ইট মারলে পাটকেল খেতেই হবে।” তাঁর কথায়, “ওনাকে না ডাকা হোক। ওনার প্রতিনিধিদের তো ডাকা হয়েছিল।”

তবে রাজ্যের অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে রেল। মেট্রোর দাবি, গতকালই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আমন্ত্রণ জানিয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। এরপর আজও নবান্নে যান মেট্রোর এক আধিকারিক। নিজে সশরীরে গিয়ে ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানান তিনি।

মেট্রোর তরফে জানানো হয়েছে, রেলমন্ত্রী পীযূষ গয়ালের নির্দেশে মুখ্যমন্ত্রীকে নিমন্ত্রণ করতে যাওয়া হয়। আজ সকালে মন্ত্রী ফোন করে সশরীরে গিয়ে নিমন্ত্রণ করতে বলেন মুখ্যমন্ত্রীকে। তাঁর সচিব আমন্ত্রণের চিঠি প্রাপ্তির কথা স্বীকার করেছেন বলেও দাবি করেছে মেট্রো কর্তৃপক্ষ। প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার বিকালে যাত্রা শুরু ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর। সল্টলেক সেক্টর ফাইভ থেকে করুণাময়ী পর্যন্ত চলবে ট্রেন।