নয়াদিল্লি: করোনা ভাইরাস নিয়ে সারা বিশ্বের মানুষ আতঙ্কে। মানুষের সাধারণ জীবনযাপন বদলে দিয়েছে এই মারণ ভাইরাস। একই সঙ্গে প্রাণঘাতী এই ভাইরাস নিয়ে একের পরে এক গুজবও ছড়িয়ে পড়ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। যার জেরে সাধারণ মানুষ ধন্দে পড়ে যাচ্ছে। এমনকী, কিছুদিন আগে একটি খবর ছড়ায় যে সাহিত্যে আগে থেকেই বলা ছিল ২০২০ করোনা ভাইরাস ছারখাড় করবে সব। এবার ইন্টারনেটে ভাইরাল হল একটি কোরিয়ান সিরিজের একটি অংশ।

নেটফ্লিক্সে রয়েছে মাই সিকরেট টেরিয়াস নামে এই কোরিয়ান ওয়েব সিরিজ। এই সিরিজ নাকি আগেই করোনাভাইরাসের ভবিষ্যদ্বানী করেছে। এই ওয়েব সিরিজ মুক্তি পেয়েছে ২০১৮-য়। ওয়েব সিরিজটির দশম এপিসোডের একটি অংশ ভাইরাল হয়। সেখানে এক চিকিৎসককে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে বলতে শোনা যায়।

চিকিৎসক বলছে এটি ফুসফুসের রোগ। এই ভাইরাসটি মার্স ও সার্সের আওতায় পড়ে। সেই চিকিৎসক বলছে মার্সে ২০ শতাংশ মানুষের মৃত্যুর সম্ভাবনা থাকে। সেখানে করোনা ভাইরাসে মৃত্যুর সম্ভাবনা থাকে ৯০ শতাংশ মানুষের। এমনকী এই রোগের কোনও ভ্যাক্সিন নেই সেটিও বলা হয়েছে। এই ভিডিও ক্লিপটি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন নেটিজেনরা।

কিন্তু এই ভিডিও কতটা সত্য তা যাচাই করা হয়েছে কি না প্রশ্ন উঠছে। রিপাবলিক ভারতের প্রতিবেদন অনুযায়ী, এই শো-তে করোনা ভাইরাসের উল্লেখ রয়েছে। এবং সেটা কতটা ভয়ঙ্কর সেটাও বলা হয়েছে ঠিকই।

কিন্তু কোভিড ১৯ প্রসঙ্গে কিছু বলা হয়নি। কোভিড ১৯ করোনার একটি একেবারে নতুন ভাইরাস। এও বলা হয়নি যে ২০২০ সালেই এই ভাইরাস আক্রমণ করবে। তাই এটা বলা যায় না যে এই কোরিয়ান ওয়েব সিরিজ আগেই ভবিষ্যদ্বাণী করেছিল।

এমন খবরও ছড়িয়েছে যে এই ভাইরাস নাকি মানুষেরই তৈরি জৈব অস্ত্র। সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন খবর অনবরত ঘুরেই চলেছে। কিন্তু সত্যি এই কোভিড ১৯ এর উৎপত্তি কোথায় তা এখনও জানা যায়নি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।