মুম্বই: শিনা বোরা হত্যাকাণ্ডে নয়া মোড়৷ রায়গড় জঙ্গলে গিয়ে দু’বার নাকি রেইকি করে এসেছিলেন প্রাক্তন মিডিয়া ব্যারন পিটার মুখোপাধ্যায়৷ ২০১৫ সালে এই জঙ্গল থেকে উদ্ধার হয়েছিল শিনার হাড় কঙ্কাল৷ ফলে এবার সরাসরি শিনা বোরা হত্যাকাণ্ডে জড়িয়ে গেল পিটার মুখোপাধ্যায়ের নাম৷ অথচ শিনা বোরা হত্যাকাণ্ড তদন্তের শুরু থেকে পিটার দাবি করে এসেছিলেন যে তিনি নির্দোষ৷

দু’বছর আগে ইন্দ্রাণীর গাড়ির চালক শ্যাম রাইকে অন্য এক কেসে গ্রেফতারের পর শিনা বোরা হত্যাকাণ্ডের ঘটনা সামনে আসে৷ উঠে আসে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য৷ দেশের অন্যতম এই হাই-প্রোফাইল মার্ডার কেসে জড়িত থাকার অভিযোগে শিনার মা ইন্দ্রাণী, তার প্রাক্তন দুই স্বামী ও গাড়ির চালককে গ্রেফতার করে সিবিআই৷

সর্বভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমে তথ্য সহকারে দাবি করা হয়েছে যে, শিনাকে মারার আগে রায়গড়ের জঙ্গলে রেইকি করতে গিয়েছিলেন পিটার মুখোপাধ্যায়৷ সঙ্গে তার এক বন্ধুও ছিল৷ তিনি দু’বার সেই জঙ্গলে গিয়েছিলেন৷ জানা গিয়েছে, পিটারের গাড়ির চালকের কল লিস্ট ও ডাটা ঘেঁটে এই তথ্য হাতে এসেছে তদন্তকারীদের৷

শুরু থেকেই শিনা বোরা হত্যাকাণ্ডে তিনি জড়িত নন বলে দাবি করে আসছিলেন পিটার৷ যদিও তার এই দাবি কখনই বিশ্বাস করেন নি তদন্তকারীরা৷ জেরায় তার বক্তব্যে অনেক অসঙ্গতি ধরা পড়ে৷ শেষ পর্যন্ত ২০১৫ সালের ১৯শে নভেম্বর স্টার ইন্ডিয়া প্রাক্তন সিইওকে গ্রেফতার করে সিবিআই৷ তার বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ আনা হয়৷ আদালতকে কেসের তদন্তকারী আধিকারিকরা জানিয়েছিলেন, ছেলে রাহুলের সঙ্গে শিনার সম্পর্ক মেনে নিতে না পেরেই তাকে খুনের ছক কষে ইন্দ্রাণী ও পিটার৷

ড্রাইভারের কল লিস্ট ও ডাটা লিস্ট সিবিআই এর প্রথম থেকে সন্দেহ করে আসা তথ্যকেই প্রমাণ করে দিল বলাই যায়৷ এবার মেয়ের খুনের মামলায় বাবা ও মা দুজনের বিরুদ্ধেই মামলা চালাতে কোন অসুবিধা হবে না সিবিআই এর৷