সুমন মণ্ডল, নন্দীগ্রাম: তৃণমূল নেতৃত্বের বিরুদ্ধে ভুড়িভুড়ি অভিযোগ তুলে অবশেষে বামেদের হাত ধরেই পথ চলার সিদ্ধান্ত নিল নন্দীগ্রামের কংগ্রেস নেতৃত্ব। বুধবার নন্দীগ্রামের রেয়াপাড়ায় এখানকার বাম-প্রার্থীর সমর্থনে বাম-কংগ্রেস যৌথ বৈঠকে যোগ দিলেন কংগ্রেস নেতৃত্বরা। এমনকি সামনের নির্বাচনে বাম প্রার্থীর সমর্থনে যৌথ ভাবে প্রচারেও কংগ্রেস অংশগ্রহণ করবে বলে জানিয়েছেন নন্দীগ্রামের প্রথম সারির কংগ্রেস নেতা সবুজ প্রধান।

একসময় বাম সরকারের জমি অধিগ্রহণের বিরুদ্ধে নন্দীগ্রামে আন্দোলনের সূচনা করেছিল কংগ্রেস নেতৃত্ব। তৎকালীন বাম নেতৃত্বের বিরুদ্ধে জমি আন্দোলনকারীদের খুন, ধর্ষণ, গায়েব করে দেওয়ার মতো ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগ তুলেছিলেন তাঁরা। অথচ সেই বাম নেতাদের এবার বিনা বাধায় আপন করে নিতে পিছপা হচ্ছে এই কংগ্রেস নেতৃত্ব। তাঁদের যুক্তি, ক্ষমতায় আসার পর থেকেই কংগ্রেসের সঙ্গে ‘গদ্দারি’ করে চলেছে তৃণমূল। তারই প্রতিবাদে এবার নন্দীগ্রামে রক্তাক্ত স্মৃতিকে দূরে সরিয়ে রেখে বামেদের সঙ্গে পথ চলতে রাজি হয়েছেন তাঁরা।

প্রসঙ্গত, এবারের বিধানসভা নির্বাচনে রাজ্য জুড়ে বামেদের সঙ্গে জোট বেঁধেছে কংগ্রেস। কিন্তু, নন্দীগ্রামের কংগ্রেস নেতৃত্বরা এতদিন পর্যন্ত বামেদের সঙ্গে জোট বাঁধার বিষয়ে কোনও স্থির সিদ্ধান্তে পৌঁছতে পারেননি। কারণটা অবশ্যই ২০০৭ সালের জমি আন্দোলন। মেগা কেমিক্যাল হাবের বিরুদ্ধে জমি আন্দোলনে নেমে প্রায় এক বছর ধরে যে রক্তপাতের সাক্ষী থেকেছিল নন্দীগ্রামের মানুষ তার জন্য নন্দীগ্রামের পাশাপাশি জেলা তথা রাজ্যের বাম নেতৃত্বের বিরুদ্ধে এই এলাকার মানুষের ক্ষোভ আজও অব্যাহত।

কিন্তু, সেই স্মৃতি ভুলে শেষ পর্যন্ত বামেদের সঙ্গে পথ চলার সিদ্ধান্ত নিল কংগ্রেস নেতৃত্বরা। সবুজ প্রধানের যুক্তি, সময়ের সঙ্গে সঙ্গে অনেক কিছুই ভুলে যায় মানুষ। রাজ্য জুড়ে তৃণমূল ‘গদ্দারি’ করেছে কংগ্রেসের সঙ্গে। তাই জমি আন্দোলনের রক্তপাতের সময়কার কথা ভুলে এবারের নির্বাচনে বাম প্রার্থী কবির মহম্মদের সমর্থনে প্রচারে নামার প্রস্তুতি নিয়েছেন কংগ্রেস নেতৃত্ব। বুধবার রেয়াপাড়ায় অনুষ্ঠিত বাম-কংগ্রেসের যৌথ সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বাম প্রার্থীর সমর্থনে যৌথ প্রচারে অংশগ্রহণ করবে কংগ্রেস, জানিয়েছেন সবুজ-বাবু।

তবে কংগ্রেস নেতৃত্বের এই মনোভাবে যথেষ্টই বিস্মিত নন্দীগ্রামের জমি আন্দোলনকারীরা। জমি আন্দোলনের অন্যতম নেতা ভবানী দাস জানিয়েছেন, জমি আন্দোলনের দগদগে স্মৃতি আজও ভোলেননি নন্দীগ্রামের মানুষ। এমন পরিস্থিতিতে নন্দীগ্রামে বামেদের সঙ্গে কিভাবে কংগ্রেস নেতৃত্ব হাত মেলাচ্ছে তা একেবারেই বোধগম্য হচ্ছে না। তাঁর মতে, এলাকার সাধারণ মানুষ এই জোট কতটা মেনে নেবে তা নিয়ে সন্দেহ থেকেই যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।