ফাইল ছবি৷

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা:  সরকার মানবিক বলেই ‘এসমা’ জারি করেনি৷ নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে জানিয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী৷ তবে ডাক্তারদের আন্দোলনে বহিরাগতদের উস্কানি রয়েছে বলে অভিযোগ তাঁর৷ জানিয়ে দেন, সমস্যা সমাধানে তিনি চাইলেও জুনিয়র ডাক্তাররাই কথা বলেনি৷

নবান্নে গিয়ে মখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলতে নারাজ জুনিয়র ডাক্তাররা৷ তা সত্ত্বেও আলোচনার জন্য রাজ্যের প্রশাসনিক দফতরে অপেক্ষা করছিলেন মুখ্যমন্ত্রী সহ রাজ্য মন্ত্রিসভার অন্যান্য সদস্য ও আমলারা৷ আন্দোলনকারীরা না এসে পৌঁছনয় শনিবার সন্ধ্যায় সাংবাদিক বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী৷

দেশের বিভিন্ন রাজ্যে এই ধরণের সমস্যা আগেও হয়েছে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী৷ তুলে ধরেন সেই সব রাজ্যের নাম৷ তবে বাংলার সরকার মানবিক বলেই সেই ধরণে কোনও পদক্ষেপ করা হয়নি বলে জানিয়ে দেন৷ তিনি বলেন, ‘‘এসমা জারি করতেই পারতাম৷ কিন্তু সেটা করলে আন্দোলনকারীদের গায়ে কালো দাগ লাগত৷ সেই কথা বিবেচনা করেই এসমা জারি লাগু করা হয়নি৷’’

গত বৃহস্পতিবার এসএসকেএম-এ গিয়েছিলেন মু্খ্যমন্ত্রী৷ সেখানে তাঁকে দেখেই ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’ স্লোগান ওঠে৷ মুখ্যমন্ত্রীর দাবি, ‘‘ওই দিন আমার সঙ্গে অশালীন আচরণ করা হয়েছিল৷ গালাগাল দেওয়া গয়৷ ধাক্কা দেওয়া হয়৷ কিন্তু তা সত্ত্বেও আমি পুলিশকে কোনও অ্যাকশন নিতে নিষেধ করি৷’’

আলোচনা এদিনের মতো ভেস্তে গেলেও নবান্ন থেকেই মুখ্যমন্ত্রী চিকিৎসা পরিষেবা স্বাভাবিক করার ডাক দেন৷ বলেন, ‘‘দাবি দাওয়া নিয়ে আলোচনা হোক৷ কিন্তু পরিষেবা যেন চালু থাকে৷’’ রাজ্য সরকার আন্দোলনকারী জুনিয়র ডাক্তারদের সব দাবিই মেনে নিয়েছে বলে জানান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ এরপরও দাবি থাকলে নিশ্চই বিবেচনা করা হবে৷ সেদিনের ঘটনায় অভিযুক্ত পাঁচ জনকে গ্রেফতার করা কথাও তুলে ধরেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান৷

জুনিয়র ডাক্তারদের আন্দোলনে বহিরাগত উস্কানি রয়েছে বলে মনে করেন মুখ্যমন্ত্রী৷ সেই উস্কানিতে পা না দিতেও আবেদন করেন তিনি৷ কেন পাশ করে যাওয়া ডাক্তাররাও এতে অংশ নেবেন তা নিয়েও প্রশ্ন তোলা হয়৷ মাঝপথেই সাংবাদিক বৈঠক থামিয়ে চলে যান মুখ্যমন্ত্রী৷ বলে যান জুনিয়র ডাক্তারদের সঙ্গে কথা বলতে যাচ্ছেন তিনি৷ কাদের সঙ্গে তিনি কথা বলেছেন? পরে সাংবাদিক বৈঠকে ফিরে এসেও সে সম্পর্কে নীরব ছিলেন তিনি৷

মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণাকে ‘বিভ্রান্তিকর’ ও ‘ভুল’ বলে দাবি করেন আন্দোলনকারী জুনিয়র ডাক্তাররা৷ সঙ্গে প্রতিবাদ করা হয়, তাদের বিরুদ্ধে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা না বলার অভিযোগটিরও৷ জানিয়ে দেওয়া হয় এসএসকেএম-এ না এলে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কোনও আলোচনা সম্ভব নয়৷ কর্মবিরতি চলবে৷