মেলবোর্ন: উইকেটের পিছনে দস্তানা হাতে বিশ্ব ক্রিকেটে নবজাগরণ এসেছিল তাঁর হাত ধরে। পাশপাশি তাঁর ধ্বংসাত্মক ব্যাটিংয়ে ঘুম উড়ত প্রতিপক্ষের। সংক্ষিপ্ত ফর্ম্যাটের ক্রিকেটে সর্বকালের সেরা উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান অ্যাডাম গিলক্রিস্ট উইকেটরক্ষক হিসেবে তাঁর সমসাময়িক কুমার সঙ্গাকারা, ব্রেন্ডন ম্যাককালাম কিংবা মার্ক বাউচারের চেয়ে আগে রাখলেন বিশ্বজয়ী ভারত অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনিকে।

ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফর্ম্যাটে সেরা উইকেটরক্ষকের তালিকায় মহেন্দ্র সিং ধোনিকে স্থান দিলেন অজি কিংবদন্তি। আর উইকেটরক্ষক হিসেবে মাহিকে সঙ্গাকারা, ম্যাককালামদের আগে স্থান দেওয়ার পিছনে যে সুনির্দিষ্ট কারণ ব্যাখ্যা করলেন গিলক্রিস্ট। ইন্সটাগ্রামে ‘লাইভ কানেক্ট’ নামে ক্রিকেটীয় অনুষ্ঠানে লাইভ চ্যাটে ওয়ান-ডে ক্রিকেটে ৪৭২ শিকারের মালিক জানান, দুর্ঘটনার কারণে মার্ক বাউচারের কেরিয়ার সংক্ষিপ্ত হয়ে যাওয়ায় ও এই তালিকায় কিছুটা পিছিয়ে থাকবে ও, তবে ওর স্থান অবশ্যই উৎকর্ষ ক্রিকেটারদের তালিকাতেই থাকবে।’

কিন্তু ধোনিকে তাঁর সঙ্গাকারা, ম্যাককালামদের আগে রাখার পিছনে তাঁর ব্যাখ্যা, ‘ধোনি যেভাবে ওর কেরিয়ারে ধীরে-ধীরে উন্নতি করেছে সেটা আমাকে খুব আকর্ষণ করে। একটা দুরন্ত শতরানে হঠাত করে প্রচারের আলোয় চলে আসা এরপর নিজের ক্রিকেট স্টাইল দিয়ে প্রত্যেকের মন জয় করে নেওয়া। ভারতের মতো দেশে যেখানে প্রত্যাশার এত চাপ সেখানে খ্যাতির শীর্ষে পৌঁছতে গেলে ক্রিকেটের প্রতি প্যাশনেট হওয়াটা আবশ্যক। আমার মনে হয় ধোনি যেভাবে নিজেকে সবকিছুর সঙ্গে সরগর করে তুলেছিল সেটা দুর্দান্ত।’

গিলি আরও জানান, ‘মাঠে ও ঠান্ডা মাথার ক্রিকেটার হিসেবে পরিচিত কিন্তু মাঠের বাইরে আমি যে ধোনিকে দেখেছি সেটা আরও চমকপ্রদ। ওকে ভালোলাগার প্রচুর কারণ আছে। ভারতীয় ক্রিকেট এবং জনসমাজে ওর প্রভাব দীর্ঘ সময়ের জন্য স্থায়ী হবে।’

উল্লেখ্য, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৬৩৪টি ক্যাচ এবং ১৯৫ স্ট্যাম্পিং নিজের নামের পাশে নিয়ে গিলক্রিস্ট এবং বাউচারের ঠিক পিছনে রয়েছেন ধোনি। তবে অধিনায়ক হিসেবে উইকেটের পিছনে সর্বোত্তম ধোনিই। উইকেটরক্ষার পাশাপাশি ওয়ান-ডে’তে ১০ হাজার রানের ক্লাবের সদস্য মাহির অধিনায়কত্বেই ২০০৭ টি২০ বিশ্বকাপ, ২০১১ ক্রিকেট বিশ্বকাপ, ২০১৩ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জয়ী হয়েছিল ভারতীয় দল।

তবে ২০১৯ বিশ্বকাপ থেকে দলের প্রস্থানের পর ধোনিকে আর ক্রিকেট আঙিনায় দেখেননি অনুরাগীরা। আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হতে চলা আমিরশাহির মাটিতে আইপিএলে তাঁকে ব্যাট হাতে দেখতে মুখিয়ে অনুরাগীরা। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কামব্যাকের ক্ষেত্রে আইপিএলের পারফরম্যান্স ভীষণ কার্যকরী ধোনির পক্ষে।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা