লন্ডন: আইসিসি’র ক্ষোভের মুখে পিছু হটতে হল মহেন্দ্র সিং ধোনিকে৷ বিসিসিআইয়ের অনুরোধ আইসিসি প্রত্যাখ্যান করায় উইকেটকিপিং গ্লাভস থেকে ‘বলিদান’ প্রতীক মুছে ফেলতে হল ধোনিকে৷

ইন্ডিয়ান টেরিটোরিয়াল আর্মির প্যরাশ্যুট রেজিমেন্টের সাম্মানিক লেফ্টন্যান্ট জেনারেল ধোনি সাউদাম্পটনে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে যে গ্লাভস পরে উইকেটকিপিং করেন, তাতে ইন্ডিয়ান প্যারা স্পেশাল ফোর্সের ‘বলিদান’ স্মারকের প্রতীক আঁকা ছিল৷ বিষয়টি নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় বিস্তর চর্চা চলে৷ ভারতীয় সেনার প্রতি ধোনির এমন সম্মান প্রদর্শনে ভারতীয় সমর্থকরা উচ্ছ্বসিত প্রসংসা করে তাঁর৷ তবে বিষয়টি আইসিসি ভালো চোখে দেখেনি৷

আইসিসি’র তরফে তড়িঘড়ি ভারতীয় বোর্ডের কাছে ধোনিকে গ্লাভস থেকে এই প্রতীক মুছে ফেলার অনুরোধ জানিয়ে বার্তা পাঠানো হয়৷ আইসিসি’র পোশাকবিধি অনুযায়ী কোনও ক্রিকেটার তার পোশাক পা সরঞ্জামে ধর্মীয়, রাজনৈতিক বা সামরিক প্রতীক ব্যবহার করতে পারেন না৷ কোনও ব্যক্তিগত অথবা বাণিজ্যিক বার্তাও বহন করা আইসিসি’র পোশাকবিধির বিরোধী৷

ভারতীয় বোর্ড প্রাথমিকভাবে বিষয়টির মধ্যে অনৈতিক কিছু রয়েছে বলে মনে করেনি৷ তাই তারা নিজেদের অবস্থানে অনড় থেকে আইসিসি’কে পালটা অনুরোধ করে ধোনির ক্ষেত্রে নিয়ম শিথিল করার জন্য৷ তবে বিসিসিআই-এর অনুরোধে কর্ণপাত করেনি ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল৷ তারা ধোনির বিরুদ্ধে দু’টি নিয়ম ভঙ্গের অভিযোগ আনে৷ প্রথমত, ধোনি এক্ষেত্রে কিটসে ব্যক্তিগত বার্তা বাহন করেছেন৷ দ্বিতীয়ত, তিনি গ্লাভসে সামরিক লোগো নিয়ে মাঠে নেমেছিলেন৷

আইসিসি’র কড়া অবস্থানের মুখে ধোনিকে নিজের পুরনো গ্লাভসজোড়া সাজঘরে রেখেই মাঠে নামতে হয়৷ রবিবার ওভালে যে গ্লাভসজোড়া হাতে পরে মাঠে নামেন ধোনি, তাতে ‘বলিদান’ প্রতীক ছিল না৷

এর আগে পুলওয়ামায় সিআরপিএফ কনভয়ে জঙ্গি হামলার পর অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে রাঁচির ওয়ান ডে ম্যাচে বিসিসিআই-এর লোগো লাগানো আর্মি ক্যাপ (কেমোফ্লেজ) পরে মাঠে নেমেছিল ভারতীয় দল৷ সেক্ষেত্রে আইসিসি কোনও আপত্তি করেনি৷ বরং ভারতীয় বোর্ডের অনুরোধে সম্মতি জানিয়েছিল ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল৷ এবার অবশ্য বিশ্বকাপের মঞ্চে ভারতীয় দলকে তেমন কোনও সুবিধা দিতে রাজি নয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেট নিয়ামক সংস্থা৷

ধোনি গ্লাভস বদলে মাঠে নামলেও বিতর্ক থামবে বলে মনে হয় না৷ কেননা, প্রতিদিনই এই বিষয়ে ধোনির পাশে দাঁড়াচ্ছেন প্রচুর সংখ্যক অনুরাগী৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় ধোনির সমর্থনে রীতিমোত প্রচার অভিযানও শুরু হয়ে গিয়েছে৷ ওভাল ম্যাচের পর নেটিজেনদের প্রতিক্রিয়া কী হয়, তা দেখার বিষয় হতে চলেছে৷ ধোনির গ্লাভসে না থাকলেও ইতিমধ্যেই ওভালে দর্শকদের হাতে বলিদান প্রতীকের পোস্টার দেখা গিয়েছে৷