স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: করোনা আবহে রাজ্যবাসীর মনে নতুন করে আতঙ্ক তৈরি করেছে ঘূর্ণিঝড় আমফান। এই দুর্যোগ মোকাবিলার জন্য প্রধানমন্ত্রীর দফতর এবং মুখ্যমন্ত্রীর দফতরকে ভূয়সী প্রশংসা করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়।

মঙ্গলবার টুইটারে রাজ্যপাল লিখেছেন, “সাইক্লোন আমফানের প্রভাবকে নিয়ন্ত্রণ করার ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী এবং মুখ্যমন্ত্রীর উদ্যোগ প্রশংসনীয়। এই সাইক্লোনে পূর্ব মেদিনীপুর, দক্ষিণ ও উত্তর ২৪ পরগনা, হাওড়া, হুগলি এবং কলকাতা সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত হবার সম্ভাবনা প্রবল। “

উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাস মোকাবিলার শুরুতেও মুখ্যমন্ত্রীর প্রসংসা করেছিলেন রাজ্যপাল। কিন্তু পরে লাগাতার সরকারের সমালোচনা করে চলেছেন তিনি। তাই এবার আমফান মোকাবিলা নিয়ে রাজ্যপালের প্রশংসা শুনে শাসক দলের কেউ-ই উচ্ছাস দেখাননি।

পশ্চিমবঙ্গের ৭টি জেলায় আমফান তাণ্ডব চালাতে পারে বলে পূর্বাভাস দিচ্ছে আবহাওয়া দফতর। পূর্বাভাস জানার পর থেকেই সংবাদমাধ্যমে বিজ্ঞাপন দিয়ে এবং জেলায় জেলায় মাইক প্রচার চালিয়ে জনগণকে সতর্ক করা শুরু করেছিল প্রশাসন।

মঙ্গলবার নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী নিজেও মনে করিয়ে দিলেন, কী কী সতর্কতামূলক ব্যবস্থা মেনে চলা জরুরি। মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে বারণ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। কাঁচা বাড়ি বা দুর্বল বাড়ি যে ঝড়ের তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে, সে কথা মুখ্যমন্ত্রী এ দিন মনে করিয়ে দিয়েছেন। যাঁদের বাড়ি কাঁচা বা দুর্বল, ঝড় আসার আগে তাঁদের সরকারি আশ্রয় কেন্দ্রে বা অন্য কোনও নিরাপদ বাড়িতে চলে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। সেইসঙ্গে বিপর্যয় মোকাবিলায় ইতিমধ্যেই এনডিআরএফ মোতায়েন হয়েছে বলেও জানান তিনি। অন্তত ৩ লক্ষ লোককে ইতিমধ্যেই নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ