ফাইল

ঢাকা: সিটিটিসি (বাংলাদেশ জঙ্গি দমন বিভাগ) প্রধান আগেই জানিয়েছিলেন পলাতক নব্য জেএমবি রাশেদ ওরফে ব়্যাশ ধরা পড়লেই গুলশন হামলার পূর্ণাঙ্গ চিত্র পাওয়া সম্ভব হবে৷ সেই মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গি অবশেষে পুলিশের জালে পড়ল৷ শুক্রবার নাটোর থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়৷

ঢাকা মহানগর পুলিশ জানিয়েছে, ধৃত জঙ্গি ব়্যাশ গত বছর গুলশনের হোলি আর্টিজান ক্যাফে হামলার ‘অন্যতম প্রধান পরিকল্পনাকারী’৷ তার আসল নাম আসলাম হোসেন৷ রাশেদ ওরফে আবু জাররা ওরফে ব়্যাশ নামেই সে পরিচিত৷ বছর চব্বিশের এই নব্য জেএমবি জঙ্গিকে জেরা করে আরও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য মিলবে৷ বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান জানিয়েছেন, দ্রুত গুলশন হামলার পূর্ণাঙ্গ চার্জশিট পেশ করা হবে৷

আরও পড়ুন: খাগড়াগড় বিস্ফোরণ চক্রী নাসিরুল্লার পর টার্গেটে সালাউদ্দিন

সম্প্রতি গুলশনের হোলি আর্টিজান হামলার অন্যতম মাস্টার মাইন্ড তথা অস্ত্র সরবরাহকারী সোহেল মাহফুজ ওরফে হাতকাটা নাসিরুল্লা সম্প্রতি ধরা পড়েছে রাজশাহীর চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ থেকে৷ পশ্চিমবঙ্গ থেকে বাংলাদেশে অস্থিরতা তৈরি করা ও বর্ধমানের খাগড়াগড় বিস্ফোরণ মামলায় সে মূল অভিুক্ত৷ তার মাথার দাম ১০ লক্ষ টাকা ঘোষণা করেছে ভারতের জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা (এনআইএ)৷

গুলশন হামলায় জড়িত নব্য জেএমবির ২১ জন জঙ্গি৷ এদের মধ্যে ১৫ জন গত এক বছরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিভিন্ন অভিযানে নিহত হয়। আর তিনজন কারাগারে রয়েছে।

২০১৬ সালের ১ জুলাই গুলশনের হোলি আর্টিজান ক্যাফের ভিতর হামলা চালায় জঙ্গিরা। কমান্ডো অভিযানে নিকেশ করা হয়েছিল জঙ্গিদের৷ একজন ভারতীয় সহ ১৭ জন বিদেশী নাগরিককে খুন করেছিল জঙ্গিরা৷ নিহতদের তালিকায় তিন বাংলাদেশি নাগরিকের নাম আছে৷ অভিযান শেষে ১৩ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়৷ জঙ্গিদের রুখতে গিয়ে দুই পুলিশ কর্মকর্তার মৃত্যু হয়৷