চণ্ডীগড়: চতুর্থদফার লকডাউন শুরু হয়েছে সোমবার থেকে। তবে প্রথমদিনেই দেখা গেল নিয়ম ভাঙার ছবি। নেই সোশ্যাল ডিসট্যানসিং, মাস্ক। কার্ফু তুলে নিয়েছে পঞ্জাব।

পঞ্জাবের গোল্ডেন টেম্পল থেকে শুরু করে অমৃতসরের ভদ্রকালি মন্দিরে সর্বত্রই এই ছবি দেখা গিয়েছে। দলে দলে যোগ দিয়েছেন ভক্তরা।

গোল্ডেন টেম্পলে যে সব ভক্তরা গিয়েছেন তাঁদের কাউকে মাস্ক পরতে দেখা যায়নি। যদিও মন্দির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে সকলকে স্যানিটাইসড করা হয়েছে। গোল্ডেন টেম্পলে ঢোকার সময় স্ক্রিনিং করা হয়েছে যা ঘণ্টাঘর চক নামে পরিচিত।

এছাড়া মন্দির চত্বরে দুটি ডিসইনফেক্ট টানেল বসানো হয়েছে। তবে অমৃতসর প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, ধর্মীয় জায়গা খোলার কোনও নির্দেশ নেই।

আরও জানানো হয়েছে, “এই ঘটনা জেলা প্রশাসনের নজরে এসেছে। ভক্তদের কেন্দ্রের গাইডলাইন নিয়ে কোনও ধারণা নেই। মন্দির কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা হয়েছে, তাঁরা সহযোগিতা করবেন বলে জানিয়েছেন। তবে কোনও ধর্মীয়স্থান খোলার নির্দেশ এখনও নেই। পুলিশকে যথাযথ ব্যবস্থার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে”।

দেশে সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। সোমবার সর্বোচ্চ হারে সংক্রমণ দেখা গিয়েছে। এখন পর্যন্ত দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯৬ হাজার ১৬৯ -এ। এরমধ্যে ৫৬ হাজারের বেশি রয়েছে অ্যাক্টিভ কেস। সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষের সংখ্যা ৩৬ হাজার ৮২৪ জন। মৃত্যু হয়েছে ৩০২৯ জনের।

সোমবার থেকে লকডাউনের চতুর্থদফায় নিয়ম বেশকিছুটা শিথিল হয়েছে দেশের বিভিন্ন রাজ্যে। কারণ সকলের পেটে টান পরছে। কাজ নেই তাই ঘরে থেকেও সাধারণের মুখে থাকছে না হাসি।

প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগেই খুলেছে বদ্রীনাথ মন্দিরের দরজা। তবে কোনও ভক্তদের সেখানে ঢোকার অনুমতি দেওয়া হবে না বলেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। পুরহিতকে ধরে মাত্র ২৭ জনকে নিয়ে ছ’মাস পরে খুলেছে মন্দিরের ফটক।

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব