Dev

কলকাতাঃ কলকাতার পর এবার ঘাটালে (Ghatal) করোনা রোগীদের বিনামুল্যে খাবার পৌঁছে দেবেন তৃণমূলের (TMC) সাংসদ অভিনেতা দেব (Dev)। কিছুদিন আগেই তিনি কলকাতার করোনা রোগীদের বিনামূল্যে খাবার পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছিলেন। সেই পথ অনুসরণ করেই এবার নিজের সংসদীয় কেন্দ্র ঘাটালে করোনা রোগীদের বিনামূল্যে খাবার পৌঁছে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

করোনা মহামারীর পরিস্থিতিতে গোটা দেশ জুড়ে হাহাকার। আংশিক লকডাউন (lockdown), সাময়িক লকডাউনে বহু মানুষ কর্মহীন হয়েছেন। তার উপর করোনা আক্রান্তদের বাড়ি থেকে বেরোনো পুরোপুরি বন্ধ। বহু জায়গায় করোনা আক্রান্ত পরিবারকে এক ঘরে করে দিচ্ছেন প্রতিবেশীরা। তাই করোনা রোগীদের পাশে দাঁড়াতে বহু সংস্থা স্বল্প মূল্যে খাবার পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করছেন। করোনা পরিস্থিতিতে শুরু থেকেই উদ্বিগ্ন ছিলেন অভিনেতা দেব। গত বছর লকডাউনে পরিযায়ী শ্রমিক এবং বিদেশে আটকে পড়া পড়ুয়াদের ঘরে ফিরিয়েছেন তিনি।

এবার করোনা রোগীদের মুখে অন্ন তুলে দেওয়ার ব্যবস্থা করলেন এই সাংসদ। কলকাতায় খুলেছেন কোভিড কমিউনিটি কিচেন। এই কিচেন থেকে বিনামূল্যে করোনা রোগীদের কাছে খাবার পৌঁছে যাবে। এবার এই উদ্যোগ ঘাটালেও। কোভিড (Covid) রিপোর্ট দেখালেই বিনামূল্যে বাড়িতে পৌঁছে যাবে খাবার।
রবিবার অভিনেতার তরফ থেকে জানানো হয়েছে ঘটালের এই উদ্যোগের কথা। একটি পোস্ট শেয়ার করে তিনি জানিয়েছেন, “ঘাটাল অন্তর্গত এলাকায় যারা করোনা আক্রান্ত তাদের নির্দিষ্ট বাসস্থানে খাদ্য সরবরাহ করা হবে, খাদ্য গ্রহণকারী ইচ্ছুক ব্যক্তিরা স্বত্বর যোগাযোগ করুন”। যোগাযোগের জন্যে উপযুক্ত ফোন নম্বরও দিয়ে দিয়েছেন। কোভিড রিপোর্ট দেখলেই বিনামূল্যে বাড়িতে পৌঁছে যাবে খাবার।

কিছুদিন আগেই হুগলির (Hoogly) এক অসহায় পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন অভিনেতা। করোনা মোকাবিলা হোক কিংবা অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো হোক, পিছু পা হননি তিনি। তার একের পর এক সহযোগিতা এবং উদ্যোগে ভক্ত মহলে প্রশংসার ঝড় উঠেছে। অনেক অনুগামীরা দেবকে সোনু সুদের (Sonu Sood) সঙ্গে তুলনা করছেন। “বাংলার সোনু সুদ” বলে সম্মধন করছেন দীপক অধিকারী তথা দেবকে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.