বেঙ্গালুরু: জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল ফের একবার বললেন ভারত কাশ্মীরিদের রক্ষা করতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। কারণ পাকিস্তান প্রতিনিয়ত জম্মু ও কাশ্মীরের অন্দরে সমস্যা তৈরির চেষ্টা করছে।

তিনি বলেন “প্রায় ২৩০ জন সন্ত্রাসীকে ধরা গেছে, তাঁদের মধ্যে কিছুজন অনুপ্রবেশ করেছে আর বাকিরা গ্রেফতার হয়েছে।” মিডিয়ার সম্মুখীন হয়ে সঙ্গে কথা বলার সময় তিনি বলেন।

সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, “আমরা পাকিস্তানের সন্ত্রাসীদের থেকে কাশ্মীরিদের জীবন রক্ষা করতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। যদিও আমরা নিষেধাজ্ঞা জারি করেছি। সন্ত্রাস পাকিস্তানের কাছে একমাত্র অস্ত্র পরিস্থিতিকে অস্থির করে তোলার জন্য।”

দীর্ঘদিন কাশ্মীরে সময় কাটিয়ে তিনি বলেছেন, কাশ্মীরের সংখ্যাগরিষ্ঠরাই ৩৭০ ধারা বিলোপের পক্ষে কথা বলেছেন। এই সিদ্ধান্তের ফলে তাঁরা আশাবাদী যে চাকরি ক্ষেত্রে সুযোগ আরও বাড়বে। অর্থনৈতিক উন্নতি হবে। তবে শুধু দুষ্কৃতিরাই এর বিরোধিতা করছে। রাজ্যের ল্যান্ডলাইন পরিষেবা সর্বত্র চালু হয়ে গেছে।

এর আগে অজিত দোভাল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রককে পাঠানো রিপোর্টে বারবার জানিয়েছেন, “কাশ্মীরে কোনও অশান্তি হয়নি। আর্টিকল ৩৭০ বিলুপ্তিকরণের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন কাশ্মীরের মানুষ। কাশ্মীর জুড়ে শান্তি বজায় আছে। কোনও উল্লেখযোগ্য ঘটনা ঘটেনি। সাধারণ মানুষ নিজের নজের কাজে যাচ্ছেন।’ কাশ্মীরে গিয়ে সেখানকার প্রশাসনিক কর্তা এবং নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে কথাও বলেন দোভাল।

আর্টিকল ৩৭০-এর সাহায্যে ১৯৪৭ সালে ভারত স্বাধীন হওয়ার পর জম্মু ও কাশ্মীরের সঙ্গে ভারত সরকারের সম্পর্ক ঠিক রাখার চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু গত ৭০ বছরের ইতিহাস বলছে সম্পর্ক আরও বিগড়েছে। সেক্ষেত্রে, জম্মু ও কাশ্মীরকে আর আলাদা চোখে দেখতে রাজি নন নরেন্দ্র মোদী। ভারতের বাকি রাজ্য গুলির মতোই থাকবে জম্মু ই কাশ্মীর। ভয়ঙ্কর ভূ-স্বর্গ কে শান্ত করার অঙ্গীকার নিয়েছেন মোদী।