লন্ডন: ডেভিড বেকহ্যামের পর ওয়েন রুনি। ফুটবলার হিসেবে পছন্দের দৌড়ে ফের মেসিকেই ভোট দিলেন আরেক ইংরেজ ফুটবল তারকা। কে সেরা, লিওনেল মেসি না ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো? বিতর্কে অংশ নিয়ে রুনি জানালেন বন্ধু হিসেবে পর্তুগিজ তারকা অনেক কাছের তবে ফুটবলার হিসেবে এগিয়ে মেসিই।

এক দশকেরও বেশি সময় ধরে বিশ্ব ফুটবলে রাজ করে আসা দুই ফুটবলারের শ্রেষ্ঠত্বের দাবি নিয়ে বিতর্ক বহুদিনের। শেষ ১২টি ব্যালন ডি’অরের মধ্যে ১১টিই নিজেদের মধ্যে ভাগ করে নিয়েছেন মেসি-রোনাল্ডো। স্বভাবিকভাবেই গ্রহের দুই সেরা ফুটবলারকে নিয়ে তর্ক চলাটাও স্বাভাবিক। সম্প্রতি সানডে টাইমসে তাঁর কলমে রুনি লেখনে, ‘তর্কসাপেক্ষে এরা দুজনেই সম্ভবত ফুটবলের সেরা প্লেয়ার। তবু আমি মেসির দিকেই যাব। কারণ ও খুব সহজভাবে ফুটবলটা খেলে।’

একইসঙ্গে প্রাক্তন সতীর্থ রোনাল্ডো সম্পর্কে রুনি বলেন, ‘আমরা যখন একসঙ্গে খেলা শুরু করি রোনাল্ডো গলের প্রতি খুব একটা ফোকাসড ছিল না। তবে ওর প্রতি সেরা হয়ে ওঠার খিদেটা মারাত্মক ছিল।’ রুনির সংযোজন, ‘ও মাঠে কোনকিছু দেওয়ার জন্য অনুশীলনের পর অনুশীলনে করে যেত। এভাবেই ধীরে ধীরে ক্রিশ্চিয়ানো একজন দুর্দান্ত স্কোরার হিসেবে মেসির সঙ্গে তুলনায় নাম লিখিয়েছে। আমার সঙ্গে ওর বন্ধুত্ব থাকা সত্ত্বেও আমি মেসির পক্ষেই যাব।’

দুই ফুটবল সুপারস্টারের মধ্যে তুলনা প্রসঙ্গটিকে খুব সহজ আকারে বোঝাতে গিয়ে রুনি জানিয়েছেন, ‘বক্সের মধ্যে রোনাল্ডোর ক্ষিপ্রতা সাঙ্ঘাতিক। একদম শিকারির মতো। কিন্তু মেসি শিকারের আগে শিকারকে অত্যাচার করে। মেসি ফুটবলটা অনেক মজা করে খেলে। গোলস্কোরিংয়ের প্রেক্ষিতে দেখতে গেলে এই দু’জন ফুটবলের সংজ্ঞাটাই বদলে দিয়েছেন। কিন্তু ধরনের দিক দুজনেই ভিন্ন।’

দিনকয়েক আগে একইভাবে রোনাল্ডোর আরেক প্রাক্তন সতীর্থ ডেভিড বেকহ্যামও দু’জনের মধ্যে লড়াইয়ে এগিয়ে রাখেন মেসিকেই। বেকহ্যামের কথায়, দু’জনে বাকিদের থেকে অনেকটা এগিয়ে। তবে মেসি রোনাল্ডোর চেয়ে আরেক ধাপ এগিয়ে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।