স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: মঙ্গলবারের ভয়াবহ আগুন পথে বসিয়েছে উত্তর ২৪ পরগনার ডানলপের শতাধিক ঝুপড়ি বাসীকে। আগুনে ভস্মীভূত হয়ে গেছে এবছরের মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী শান্তনু সোনাইয়ের বস্তির ঘরটিও। ওই ঘরেই বাবা মায়ের সঙ্গে থেকে এবছর মাধ্যমিক পরীক্ষা দিচ্ছিল সে।

মঙ্গলবার মাধ্যমিক পরীক্ষা শুরুর দিন শান্তনু পরীক্ষাকেন্দ্রে বাংলা পরীক্ষা দিতে গিয়েছিল। সেই সময় হঠাৎই আগুন লাগে তাদের বস্তিতে৷ পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে বেরিয়েই সে এই আগুন লাগার খবর পায়। বাড়িতে ছুটে এসে দেখে গোটা বস্তিই আগুনে ভস্মীভূত হয়ে গিয়েছে৷ আগুনে পুড়ে নষ্ট হয়ে গেছে তার পড়ার সব বইপত্র৷

তবে এই সময় তার পাশে এসে দাঁড়ায় বরানগর পুরসভা। সঙ্গে সঙ্গে তার বইয়ের ব্যবস্থা করে দেয় পুরসভা কর্তৃপক্ষ৷ রাতেই সে চলে যায় এক বন্ধুর বাড়িতে। সেখানে থেকে বুধবার মন খারাপ নিয়েই মাধ্যমিকের দ্বিতীয় ভাষা ইংরাজী পরীক্ষা দিল শান্তনু।

তবে পরীক্ষা কেন্দ্রে যাওয়ার আগে ছেলে কিছু খেয়ে পরীক্ষা দিতে গেল কিনা জানতে পারেনি তার মা সরস্বতী সোনাই। তিনি বলেন, ‘ছেলেকে পরীক্ষা দিতে যাওয়ার আগে কিছুই খেতে দিতে পারিনি। কি খেয়ে গেল জানিনা। ওর মন খুব খারাপ। ও যে কি পরীক্ষা দেবে বুঝতে পারছি না। এক বন্ধুর বাড়িতে ও থাকতে চলে গিয়েছে৷ সেখানেই রাতে পড়াশোনা করবে। এখানে থাকবে কি করে? কারেন্ট নেই। সরকার কবে আমাদের দিকে মুখ তুলে তাকাবে এখন সেদিকেই তাকিয়ে আছি আমরা।’

ডানলপের বস্তিবাসীদের সাময়িকভাবে বরানগর বি কে সি কলেজে থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে প্রশাসনের পক্ষ থেকে। বরানগর পুরসভার পক্ষ থেকে ঘরপোড়া মানুষদের জন্য খিচুড়ি খাওয়ানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে।