লন্ডন: মৌরিসিও সারির ইস্তফার পর চেলসির নতুন ম্যানেজার কে হবেন? দৌড়ে সবার আগে যার নামটি ঘোরাফেরা করছে, তিনি ক্লাবেরই প্রাক্তন কিংবদন্তি ফ্র্যাঙ্ক ল্যাম্পার্ড। ফুটবলার হিসেবে লন্ডনের ক্লাবে কেরিয়ার শেষ করার পর এবার ম্যানেজার হিসেবে তাঁর প্রিয় ক্লাবে প্রত্যাবর্তনের অপেক্ষায় প্রহর গুনছেন অনুরাগীরা।

কিন্তু প্রিয় ক্লাবে ফ্র্যাঙ্ক ল্যাম্পার্ড এবং তাঁর নতুন ইনিংস শুরুর মাঝে অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছিল ইংল্যান্ডের সেকেন্ড টিয়ার ক্লাব ডার্বি কাউন্টি। গত মরশুমে কোচ হিসেবে নিযুক্ত হওয়ার পর আগামী মরশুমেও ডার্বিশায়ারের এই ক্লাবের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ রয়েছেন প্রাক্তন ইংরেজ তারকা। তাই ডার্বি কাউন্টি কর্তৃপক্ষের সম্মতি না পেলে কোনওমতেই ল্যাম্পার্ডের চেলসিতে যোগদান সম্ভব ছিল না। অবশেষে জল্পনার অবসান ঘটল মঙ্গলবার। লন্ডনে তাঁর প্রিয় ক্লাবে নতুন ইনিংস শুরু করার জন্য ল্যাম্পার্ডকে সম্মতি দিল ডার্বি কাউন্টি।

আরও পড়ুন: কোপা আমেরিকার কোয়ার্টার ফাইনালের সূচি

এদিন এক বিবৃতিতে ডার্বিশায়ারের ক্লাবটি জানায়, ‘স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে খালি ম্যানেজার পদের জন্য ল্যাম্পার্ডের সঙ্গে চেলসি ক্লাবকে আলোচনা করার সম্মতি প্রদান করল ডার্বি কাউন্টি।’ অর্থাৎ প্রয়োজনীয় কথাবার্তা সেরে চেলসিতে ম্যানেজার হিসেবে যোগদান করার ক্ষেত্রে আর কোনও বাধা রইল না ক্লাবের প্রাক্তন কিংবদন্তি ফ্র্যাঙ্ক ল্যাম্পার্ডের। ২০০১ থেকে ২০১৪। দীর্ঘ ১৪ বছরে লন্ডনের ক্লাবে ৩টি প্রিমিয়র লিগ, চ্যাম্পিয়ন্স লিগ, ইউরোপা লিগ সহ ১৩টি ট্রফি জিতেছেন প্রাক্তন এই ইংরেজ মিডিও। পাশাপাশি ব্লুজ জার্সিতে ল্যাম্পার্ডের নামের পাশে লেখা রয়েছে রেকর্ড ২১১ গোল।

আরও পড়ুন: ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন সুয়ারেজরা

তবে ম্যানেজার বা কোচ হিসেবে ল্যাম্পার্ডের ভান্ডার বিশেষ সমৃদ্ধ নয়। পেশাদার কোচ হিসেবে গত মরশুমে কেবল ডার্বি কাউন্টিকে কোচিং করানোর অভিজ্ঞতাই রয়েছে তাঁর ঝুলিতে। অল্পের জন্য ডার্বিশায়ারের ক্লাবটিকে প্রিমিয়র ডিভিশনে তুলতে ব্যর্থ হয়েছেন দেশের হয়ে ১০৬ ম্যাচে প্রতিনিধিত্ব করা ল্যাম্পার্ড। চ্যাম্পিয়নশিপ প্লে-অফ ফাইনালে অ্যাস্টন ভিয়া’র কাছে হেরে প্রিমিয়র ডিভিশনের দৌড় থেকে ছিটকে যায় ডার্বি কাউন্টি।

আরও পড়ুন: বুমরাহকেই বিরাটদের বিশ্বজয়ের চাবিকাঠি বলছেন ক্লার্ক

এদিকে ক্লাবকে ইউরোপা লিগ চ্যাম্পিয়ন করেও মরশুম শেষে তুরিনে পাড়ি দিয়েছেন সারি। মরশুম শেষে চেলসি ছেড়েছেন ইডেন হ্যাজার্ডও। পাশাপাশি অনিয়মের অভিযোগে ফিফার নির্দেশ অনুযায়ী চলতি মরশুমে দু’টি ট্রান্সফার উইন্ডো ব্যান থাকায় নতুন কোনও ফুটবলারকেও দলে নিতে পারবে না তাঁরা। এমন অবস্থায় প্রাক্তন তারকা ফুটবলারকে ম্যানেজার পদে আসীন করে পরিস্থিতি কতটা নিয়ন্ত্রণে আনতে পারে চেলসি কর্তৃপক্ষ, এখন সেটাই দেখার। দিনকয়েক আগে উপদেষ্টা প্রধান পদে ক্লাবের আরেক প্রাক্তন তারকা পিটার চেককে বসিয়েছে লন্ডনের ক্লাবটি।