স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের বেকার ল্যাবের কয়েকটি বিভাগকে নিউটাউনে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া যায় কিনা, সে ব্যাপারে ভাবনাচিন্তা শুরু হয়েছে। সোমবার এ ব্যাপারে মতামত নেওয়ার জন্য বিভাগীয় শিক্ষকদের নিয়ে একটি বৈঠক ডেকেছেন কর্তৃপক্ষ। কিন্তু বিষয় হল একাংশ শিক্ষক ইতিমধ্যেই এই প্রস্তাবের বিরোধিতা করেছেন।

তাঁদের যুক্তি, এমনিতেই ২০০ বছর উপলক্ষ্যে ক্যাম্পাসে সংস্কার কাজের জন্য তাঁদের নির্ধারিত গবেষণা থমকে ছিল। কিছুদিন আগে সংস্কার প্রক্রিয়া শেষ করে সবে ল্যাবরেটরিগুলিতে ব্যবস্থা তৈরি করা হয়েছে, এখনই আবার স্থান পরিবর্তন করা হলে গবেষণার কাজে সমস্যা হতে পারে।

শতাব্দী প্রাচীন বেকার ল্যাবে এই মুহূর্তে চারটি বিভাগ রয়েছে। তারমধ্যে সব চাইতে বড় বিভাগ লাইফ সায়েন্সের। ওই বিভাগের শিক্ষকদের মতামত চাওয়া হয়েছে। কর্তৃপক্ষের যুক্তি, ওই বিভাগে নতুন নিয়োগ হওয়া শিক্ষকদের জন্য পর্যাপ্ত জায়গা নেই। ফলে নতুনদের এমনিতেই গবেষণার কাজের জন্য নিউটাউনে সরতেই হবে। পুরোনো শিক্ষকরাও যদি একই সঙ্গে নিউটাউন ক্যাম্পাসে সরে যান তা হলে বিভাগের অযথা ভাগাভাগি এড়ানো যায়।

পড়ুয়ারাও গত শুক্রবার বৈঠক করেছেন। তাঁরাও অনেকে নয়া ক্যাম্পাসে বিভাগ সরানোর প্রস্তাবে সহমত নন। তাঁদের অনেকের অভিযোগ, যেহেতু লাইফ সায়েন্স বিভাগে সব মিলিয়ে প্রায় ৪০০ ছাত্র-গবেষক রয়েছেন, তাই বড় এই বিভাগটি সরিয়ে দেওয়ার প্রস্তাব আসলে ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে অযথা বিভাজন তৈরির চেষ্টাই। এ ব্যাপারে অবশ্য কোনও পক্ষই প্রকাশ্যে মুখ খুলতে চাননি।