লখনউ: পূর্ব উত্তর প্রদেশের দেওরিয়ায় আরথি বাবা ওরফে রাজেশ যাদব ফের একবার নির্বাচনের ময়দানে নেমে পড়েছেন। দেওরিয়া আসনের উপনির্বাচনে যখন তিনি মনোনয়নপত্র জমা দিতে যান, তখন তাঁর অদ্ভূত কাণ্ড দেখে চমকে গিয়েছেন সকলে।

জানা গিয়েছে এই প্রার্থী এখনও অবধি ১১ বার নির্বাচন লড়েছে। তবে তাঁর মন্দ কপাল, হেরেছেন ১১ বারই। তিনি ‘রাম নাম সত্য হ্যায়’ আওয়াজ তুলে মনোনয় পত্র জমা দিতে কালেক্টর অফিসে পৌঁছন। একটি খাটিয়ায় চেপে চার ব্যক্তির কাঁধে করে মনোনয়ন পত্র জমা দিতে পৌঁছান তিনি।

জানা গিয়েছে, কয়েকজন ব্যক্তির কাঁধে করে খাটিয়ায় চেপেই গ্রামে গ্রামে লোকের বাড়ি বাড়ি গিয়ে লোকের কাছে ভোট চেয়েছেন এই রাজেশ যাদব। তাঁর বেশ কয়েকটি ভিডিও এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় রীতিমতো ভাইরাল।

শুধু খাটিয়ায় চড়ে লোকের কাঁধে চেপে ঘুরে বেড়ানো না, প্রার্থীকে দেখা গিয়েছে ভোটারদের পাপ ধুয়ে দিতে। এব্যাপারে তিনি জানিয়েছে, ভোটার আসলে ভগবানের মতো, তাই তাঁদের তিনি পা ধুইয়ে দেন।

উল্লেখ্য, আরথি বাবা নামে খ্যাত রাজেশ যাদব দেওরিয়া সদর আসন থেকে নির্দল প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন লড়ছেন। তিনি এমবিএ পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন। এখন অবধি ১১ বার নির্বাচন লড়লেও জয়ের মুখ দেখতে পাননি তিনি। তবে আশা ছাড়তে নারাজ আরথি বাবা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.