সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায় , হাওড়া : ‘তারে জমিন পর’-এর বদলে যদি কোনও সিনেমার নাম হয় ‘মশা জমিন পর’? অবাক হবে না । ‘রোজ কত কি ঘটে যাহা তাহা’, তাহলে এটা সম্ভব নউ কেন ? সম্ভব করে দেখিয়েছে এক দল স্কুল পড়ুয়া। মশার সাজে নেমে পড়েছে মাঠে ঘাটে ,রাস্তায় , বাড়ি বাড়ি ঘুরে ফিরে তারা প্রচার করছে ডেঙ্গু সতর্কতা।

বর্ষা দক্ষিণবঙ্গে এখনও পা না রাখলেও বর্ষার সময় হাজির হয়েছে। আর বর্ষা আসা মানেই ডেঙ্গুর মশার বারবারন্ত হয়। পাশাপাশি চিকিৎসকরা বলছেন , আবহাওয়ার সঙ্গে পরিবর্তন হয়েছে ডেঙ্গুর মশার চরিত্র। তাই শীত, গ্রীষ্ম , বর্ষা মানছে না। নোংরা জলেও জন্ম নিচ্ছে এইসব মশা। তাই বর্ষা আগমনের আগে যখন গরমে নাস্তানাবুদ মানুষ ঠিক সেই সময়েই সচেতনতার উদ্দেশ্যে নেমে পড়েছে হাওড়ার আমতার-২ নং ব্লকের খড়িয়প উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীরা।

বর্ষা আসার আগে রাজ্য জুড়ে ডেঙ্গু সচেতনতা মাস পালিত হচ্ছে। সেই উপলক্ষেই সচেতনতার কাজে তারা অংশ নিয়েছে। পালিত হয়েছে, ‘Vector Borne Awareness Program’। ওদের সাজ পোশাক ছিল কিছুটা ‘তারে জমিন পর’ ছবিতে আমির খান অভিনীত নিকুম্ভ স্যারের মতো। ছাত্রছাত্রীরা নিজে হাতে ছবি এঁকে,বিভিন্ন পোস্টার তৈরি করে পদযাত্রার মাধ্যমে স্থানীয় মানুষকে সচেতনতার শুভ বার্তা পৌঁছে দেয়। মিছিল থেকে ডেঙ্গু প্রতিরোধক ব্যবস্থা,ডেঙ্গুর চিকিৎসা সম্পর্কে বিশেষত নিজের বাড়ির চারপাশকে জঞ্জাল-পচাজল মুক্ত রাখার কথা বলা হয়।

মিছিলে পা মেলায় শ’দুয়েক পড়ুয়া।এছাড়াও,’ডেঙ্গু রোধ করো’ বিষয়ের উপর অঙ্কন ও লেখা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয় বলে জানান বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা মৌনিশা ঘোষ বন্দ্যোপাধ্যায়।স্থানীয় এক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সম্পাদক তাপস পাল উদ্যোগের প্রশংসা করে বলেন,”আরও বেশি বেশি করে পড়ুয়াদের মাধ্যমে সমাজকে সচেতন করে তুলতে হবে,কারণ ছাত্রছাত্রীরাই আগামীর ভবিষ্যৎ।”

ডেঙ্গু জ্বর ব্রেকবোন ফিভার নামেও পরিচিত, একটি সংক্রামক ট্রপিক্যাল ডিজিজ যা ডেঙ্গু ভাইরাস-এর কারণে হয়। যে উপসর্গগুলি দেখা যায় তার মধ্যে আছে জ্বর, মাথাব্যথা,পেশি এবং গাঁটে ব্যথা, এবং একটি বৈশিষ্ট্য ত্বকে র‍্যাশ যা হামজ্বরের সমান। কিছু ক্ষেত্রে ডেঙ্গু হেমোর‍্যাজিক ফিভারে পরিণত হয়, যার ফলে রক্তপাত, রক্ত অনুচক্রিকার কম মাত্রা এবং রক্ত প্লাজমার নিঃসরণ অথবা ডেঙ্গু শক সিন্ড্রোম হয়, রক্তচাপ বিপজ্জনকভাবে কম থাকে।