সারা বছর সেই একঘেয়ে খাবার খেয়ে বোর হয়ে গিয়েছেন তো? স্বাদ পালটানোর একটাই ঠিকানা দুর্গাপুজো৷ পুজোর দিনগুলোতে আপনার পাতে ভালো মন্দ পড়লে, সেই অক্সিজেন নিয়ে বাঁচা যায় গোটা বছরটা৷ পুজোর দিনগুলোতে বাড়িতেই বানিয়ে নিতে পারেন এরকম বেশ কিছু খাবার, যা জিভের শান্তি আর মনের আরাম৷

আলু পুরি
আমরা সবাই ডাল পুরির সঙ্গেই বেশি পরিচিত। কিন্তু আমাদের প্রাত্যাহিক জীবনে অঙ্গাঅঙ্গি ভাবে জড়িয়ে আছে আলু। যে কোনও তরকারীতে আলুর অবদান অনস্বীকার্য। বাঙালির রান্নাঘরে আলু না থাকলে সবজির ঝুড়িটাই যেন কেমন খালি খালি লাগে। তো ডাল পুরি নান পুরি অনেক খেয়েছেন। এবার খেয়ে দেখুন আলুর পুরি।

উপকরন- ময়দা ১-কাপ, লবণ স্বাদমত, ঘি ২-চামচ, জল পরিমান মত, সিদ্ধআলু ১-কাপ, ধনেপাতা কুচি ২- চা চামচ, শুকনোলঙ্কা ২-টি, পেঁয়াজ বাটা ২ চা-চামচ এবং কাঁচালঙ্কা ১টা। চাইলে নাও দিতে পারেন৷

প্রণালী- প্রথমে একটি বাটিতে ময়দা, লবন, ঘি এবং জল দিয়ে ভালোভাবে মাখিয়ে ময়ান তৈরি করুন। আরেকটি বাটি নিয়ে তাতে সিদ্ধ আলু, ধনেপাতা কুচি, শুকনো লঙ্কা, পেঁয়াজ বাটা, স্বাদমত লবন দিয়ে ভালোভাবে মাখিয়ে পুর তৈরি করুন। এবার আগে থেকে মেখে রাখা ময়ান বেলে তার মাঝখানে এই পুর দিয়ে আপনার ইচ্ছামত সাইজের পুরি বানিয়ে নিন।

তারপর ফ্রাই প্যানে ঘি ঢালুন, ঘি গরম হয়ে গেলে তাতে আলুর পুরিগুলো ছেঁড়ে দিন। ভাজা হয়ে গেলে গরম গরম যে কোনও সবজির সাথে পরিবেশন করুন আলু পুরি।

বাদামের হালুয়া:
হালুয়ার কথা উঠলেই আমাদের মাথায় সবার প্রথমে যে নামটি মনে আসে সেটি হল সুজি অথবা গাজর। কিন্তু এখানে বাদাম এবং ডিম দিয়ে তৈরি করা হয়েছে একেবারে নতুন স্বাদের একটি পদ। যা আপনার বিশেষ দিন গুলিকে আরও বিশেষ করে তুলবে।

উপকরন- গুঁড়ো দুধ ৩-কাপ, তরল দুধ ১-কাপ, চিনি ৩-কাপ, ডিম ৬টা, আলমণ্ড/কাঠ বাদাম ১-কাপ,আখরোট ২/৩কাপ এবং এলাচ গুঁড়ো জায়ফল গুঁড়ো সামান্য।

প্রণালী- প্রথমে বাদাম গুলিকে এক সাথে ভেঙে আধা গুঁড়ো করে নিন। তারপর একটা ওভেন প্রুফ ডিশে বাটার গলিয়ে নিন।এবার এতে চিনি দিয়ে ভালোভাবে নেড়ে অন্যান্য উপকরন গুলি ভালোভাবে মিশিয়ে নিন । এবার ৩৫০ ফারেনহাইট বা ১৭৫ ডিগ্রী সেলসিয়াসের এর প্রী হিটেড ওভেনে দিন ১ ঘণ্টার জন্য। কিন্তু এই মিশ্রনটি ১০ মিনিট পর পর নামিয়ে নেড়ে নিতে হবে। রান্নার সময় খেয়াল রাখতে হবে এটা তেল ছাড়বে এবং কিছুটা বাদামি রঙের দেখতে হবে। ঠাণ্ডা হলে নামিয়ে ফ্রিজে রেখে পরে কেটে সুন্দর ভাবে সাজিয়ে পরিবেশন করুন ভীষন সুন্দর হালুয়া।

ছানামুখি
নাম শুনেই বুঝতে পারছেন ছানামুখি হল ছানা আর দুধ দিয়ে তৈরি দারুন একটি রেসিপি। তাই রেসিপিটি দেখে ঝটপট তৈরি করে ফেলুন বাড়িতে ছানামুখি।

উপকরন- দুধ ১ কেজি, ভিনিগার ২-চামচ, চিনি দেড় কাপ, এলাচ ২টি, দারচিনি ১টি।

প্রণালী- ১ কেজি দুধ ওভেনে বসিয়ে ভালো করে জ্বাল দিন৷ পরে ২ চামচ ভিনিগার এবং সমপরিমান জল মিশিয়ে দুধে একটু একটু করে মেশাতে থাকুন। এবার ছানা আর জল আলাদা হয়ে গেলে নামিয়ে নিয়ে ভালো করে ছাকনিতে ছেকে ছানাগুলো জল দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে যেন গন্ধ না থাকে।

এবার একটা পাতলা কাপড়ে ছানাটা মুড়ে ঝুলিয়ে রাখতে হবে ঘণ্টাখানেক। ১ ঘণ্টা পরে ছানাটিকে একটি প্লেটে ঢেলে চারপাশ সমান করে ছুরি দিয়ে বরফির আকারে কেটে নিতে হবে। এবার একটা পাত্রে ১/২ কাপ চিনি ও সমপরিমান জলের সঙ্গে একটা এলাচ এবং একটুকরো দারচিনি মিশিয়ে সিরা তৈরি করে নিতে হবে। তারপর সিরার মধ্যে ছানাগুলো দিয়ে আস্তে আস্তে নাড়তে হবে। সিরা শুকিয়ে গেলে একটা প্লেটে ঢেলে নেবেন। এরপর ফ্রিজে ১ ঘণ্টা রাখলেই ছানা শক্ত হয়ে যাবে এবং উপরে চিনির আস্তরণ পড়বে৷ তখনই তৈরি আপনার পছন্দের ছানামুখি৷