নয়াদিল্লি: ফের দিল্লিতে বিধ্বংসী আগুন। দিল্লির বিজওয়াসনের একটি ওয়্যারহাউসে শুক্রবার সকালে ভয়াবহ আগুন লাগে। খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে যায় দমকলের ১৪ ইঞ্জিন। দমকলকর্মীদের সঙ্গে আগুন নেভানোর কাছে হাত লাগিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারাও। অগ্নিকাণ্ডে এখনও পর্যন্ত হতাহতের খবর নেই। তবে আগুন লাগার কারণ এখনও স্পষ্ট করে জানাতে পারেনি দমকল।

শুক্রবার সকালে দিল্লির বিজওয়াসনের একটি ওয়্যারহাউসে ভয়াবহ আগুন লাগে। গত কয়েক মাসে পরপর অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটছে রাজধানীতে। চলতি বছরের জানুয়ারিতেও লরেন্স রোডে একটি জুতোর কারখানায় বিধ্বংসী আগুন লাগে। তারও আগে ১১ জানুয়ারি দিল্লির হরিনগরে জুতো তৈরির কারখানায় আগুন লাগে। সেই অগ্নিকাণ্ডে বেশ কয়েকজন গুরুতর জখম হয়েছিলেন।

দিল্লিতে গত কয়েক বছরে ছোট-বড় মাপের একাধিক অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে। ২০১৯ সালের ২৩ ডিসেম্বর দিল্লির আনাজ মান্ডির একটি কারখানায় বিধ্বংসী আগুন লেগেছিল। আগুনে ঝলসে মৃত্যু হয়েছিল ৯ জনের। কারখানাটিতে অগ্নিনির্বাপণ বিধি মানা হয়নি বলে অভিযোগ করে দমকল।

একইসঙ্গে জনবহুল এলাকায় কীভাবে ওই কারখানা গড়ে উঠল তা নিয়েও প্রশ্ন উঠতে শুরু করে প্রশাসনের অন্দরেই। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ ছিল, কোনরকম সুরক্ষাবিধি না মেনেই দিনের পর দিন ওই এলাকায় কারখানাটি চলছিল। এরপর গত ডিসেম্বরেও নারেলায় একটি জুতো তৈরির কারখানাতেও আগুন লেগে জখম হন বেশ কয়েকজন।

শুক্রবার সকালে হঠাৎই দিল্লির বিজওয়াসনের ওই ওয়্যারহাউসে আগুন লেগে যায়। মুহূর্তে হুড়োহুড়ি শুরু হয়ে যায় এলাকায়। আশপাশের জলাশয় থেকে জল এনে আগুন নেভানোর চেষ্টা হয়। কিন্তু আগুনের ভয়াবহতা বেড়ে যাওয়ায় বিপত্তি বাড়ে। খবর পেয়ে কিছুক্ষণের মধ্যেই এলাকায় পৌঁছয় দমকল। স্থানীয় বাসিন্দাদের সহযোগিতায় আগুন নেভানোর কাজ চালাচ্ছেন দমকলকর্মীরা। ওয়্যারহাউসের ভিতরে কেউ আটকে আছেন কিনা তা খতিয়ে দেখছেন দমকলকর্মীরা।