নয়াদিল্লি : বড়সড় সাফল্য দিল্লি পুলিশের। শনিবার ভারতের মোস্ট ওয়ান্টেড ডন দাউদ ইব্রাহিমের ডান হাত আনওয়ার ঠাকুরকে গ্রেফতার করল পুলিশ। দিল্লি পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চের হাতে ধরা পড়ে সে। আনওয়ার ঠাকুরের সঙ্গে ছিল এক ব্রাজিলিয়ান নাগরিক। তার কাছ থেকে ২২ লক্ষ টাকা দামের সেমি অটোমেটিক পিস্তল উদ্ধার করে।

দিল্লির চাঁদ বাগ এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। ১৯৯২ সালে সদর বাজার পুলিস স্টেশনের ভিতরে এক পুলিশ চরকে গুলি করে খুন করে। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় ওই ইনফর্মারের। আদালত তাকে যাবজ্জীবন সাজা শোনালেও, প্যারোলে বেরিয়ে পালিয়ে যায় সে। দিল্লির উত্তর প্রান্তে চেনু গ্যাং নামে একটি দলের মাথা ছিল এই আনওয়ার।

আনওয়ার ঠাকুরের ছয় ভাইয়ের মদ্যে একজন আশরাফ ২০০২ সালে মুম্বই পুলিশের এনকাউন্টারে মারা যায়। এই আশরাফও দাউদ ইব্রাহিমের হয়ে কাজ করত। মাফিয়া ডন ফয়জল উর রেহমান ও বাবলু শ্রীবস্তাবের মতো লোকেদের সাথেও যোগাযোগ ছিল এই আনওয়ারের।

অন্যদিকে, দীর্ঘদিন ধরে করাচিতে গা ঢাকা দিয়ে আছে দাউদ। বিভিন্ন গোয়েন্দা সূত্রে তার অবস্থান সম্পর্কে জানা গিয়েছে। একাধিকবার তার মৃত্যুর জল্পনাও তৈরি হয়েছে। ফের জুন মাসে তার মৃত্যু নিয়ে জল্পনা তৈরি হয়। সূত্রের খবর ছিল, করাচির সেনা হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে দাউদ, কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে দাউদের বডিগার্ড।

২০১৭ সালে খবর ছড়ায় দাউদ অসুস্থ। কিন্তু সেইসময় পুলিশের জেরায় ডনের ভাই কাসকর দাবি করে, পুরোপুরি সুস্থ দাউদ। জেরায় কাসকর এও জানিয়েছিল, নিরাপত্তা নিয়ে পাকিস্তানে ঘুরে বেড়াচ্ছে দাউদ!

পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর ঘেরাটোপে থাকা ভারতের মোস্ট ওয়ান্টেড অপরাধী দাউদ ইব্রাহিমের করোনা আক্রান্তের খবর সামনে এসেছিল। তবে সেই খবর একেবারেই সত্যি নয়, এমনটাই জানিয়েছেন দাউদ ইব্রাহিমের ভাই অনীশ ইব্রাহিম।

শুধু দাউদ ইব্রাহিমই নয়, তার স্ত্রী কোভিড ১৯ আক্রান্ত হয়ে করাচি সেনা হাসপাতালে ভর্তি। এমনটাই খবর প্রকাশ করা হয়েছিল। সেই খবরও উড়িয়ে দিয়েছে দাউদের ভাই। তবে দাউদের ভাই অনীশ যিনি ডি কোম্পানির অন্যতম এক কর্তা এবং সকল অর্থনৈতিক লেনদেন এবং অপরাধমূলক কাজ সামলান তিনি জানিয়েছেন সুস্থ আছেন ভারতের মোস্ট ওয়ান্টেড অপরাধী দাউদ ইব্রাহিম কাসকর।

অনীশ এও জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে পাকিস্তানে জটিল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে এই করোনা ভাইরাসের কারণে। তবে তার পরিবার সুস্থ রয়েছেন। পাকিস্তানে থেকেই সেই দেশ এবং সংযুক্ত আরব আমীরসাহিতে ব্যবসা সামলাচ্ছেন দাউদ ইব্রাহিম। কিছুদিন আগে জানা গিয়েছিল তারা এই ভাইরাসে আক্রান্ত। তারই সঙ্গে ব্যক্তিগত কর্মীদের ইতিমধ্যে কোয়ারেন্টাইনে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ