নয়াদিল্লি : বিস্ফোরণে উড়িয়ে দেওয়া হবে গুরুত্বপূর্ণ রাজনীতিবিদদের। ভারতীয় গোয়েন্দা সূত্রে এমনই হুমকির খবর পাওয়ার পরেই তৎপরতা শুরু। সীমান্ত জুড়ে নজরদারির গতি ও পরিমাণ বাড়ানো হয়েছে।

একদিকে ভারত চিন সংঘাত, অন্যদিকে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক তিক্ত হচ্ছে নেপালের সঙ্গেও। এর মধ্যেই জঙ্গি হামলার হুমকি মেলায়, তা উপেক্ষা করছে না ভারত। হাই অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে জম্মু কাশ্মীর, দিল্লি ও বিহারে। ২২শে জুন গোয়েন্দা সূত্রে এই তথ্য পায় নয়াদিল্লি। তারপরেই তৎপরতা শুরু হয়।

গোয়েন্দা সূত্রে খবর, পাকিস্তানের আইএসআই ভারতের বড়সড় হামলার ছক কষেছে। তালিবান ও জইশ জঙ্গিদের নিয়ে এই হামলা চালানোর পরিকল্পনা করেছে তারা। নয়াদিল্লির একাধিক জায়গায় বিস্ফোরণ ঘটানো ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের উড়িয়ে দেওয়া তাদের হামলার লক্ষ্য।

সূত্র জানাচ্ছে নিয়ন্ত্রণরেখা পেরিয়ে কমপক্ষে ২০জন জঙ্গি কাশ্মীরে অনুপ্রবেশের চেষ্টা করছে। অন্যদিকে অনুপ্রবেশের চেষ্টা চলছে বিহার লাগোয়া ভারত নেপাল সীমান্তে।

একদিকে ক্রমাগত জঙ্গি অনুপ্রবেশ, অন্যদিতে সীমান্ত জুড়ে পাকিস্তানি সেনার গুলির লড়াই। সব মিলিয়ে কাশ্মীরে উত্তাপ যথেষ্ট। এরই মাঝে নয়া চিন্তা মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে। গোয়েন্দা সূত্রে খবর, জম্মু কাশ্মীর থেকে প্রায় ২০০ জন যুবক নিখোঁজ। এদের প্রত্যেকের কাছে পাকিস্তানি ভিসা রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

এই তথ্য প্রকাশ্যে আসার পরেই তৎপরতা শুরু হয়েছে। প্রশাসনের ধারণা জঙ্গি সংগঠনে নাম লেখানোর পরেই এরা নিখোঁজ হয়েছে। পাকিস্তান এদের জঙ্গি প্রশিক্ষণ দেওয়ার জন্যই মগজধোলাই করেছে। জম্মু কাশ্মীরে সন্ত্রাস ছড়ানোর লক্ষ্যে এদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে বলে মনে করছে নয়াদিল্লি। ইতিমধ্যেই হাই অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে।

২০১৭ সাল থেকে জম্মু কাশ্মীরের ৩৯৯জন যুবককে ভিসা দিয়েছে পাকিস্তান হাই কমিশন। এর মধ্যে ২১৮জনের পরিচয় জানা যায়নি। গোয়েন্দা সূত্রে খবর অস্ত্র সরবরাহ, সেনা সম্পর্কিত তথ্য এদের থেকে জানতে চাইছে পাকিস্তান। প্রশিক্ষণের পরে কাশ্মীরে ফেরত পাঠানো হবে এদের। এই যুবকরা কাশ্মীরে হামলা চালাতে পারে।

ভারত ক্রমাগত পাকিস্তান থেকে জঙ্গি অনুপ্রবেশ ঠেকিয়ে চলেছে। এই সব জঙ্গিদের মধ্যে বেশ কয়েকজন ফিরে আসছে পাকিস্তানি ভিসা নিয়ে। ৫ই এপ্রিল ৫ জঙ্গিকে নিকেশ করে সেনা, এর মধ্যে ছিল আদিল হুসেন, উমর নাজির খান, সাজ্জাদ আহমেদ হুররা। এরা ২০১৮ সালে পাকিস্তান যায়, তাদের কাছে পাক হাই কমিশনের দেওয়া ভিসা ছিল।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ