জয়পুর: নেতৃত্বের দায়ভার ঘাড় থেকে নেমে যেতেই ঝলসে উঠল অজিঙ্কা রাহানের ব্যাট৷ ঘরের মাঠে দিল্লির বিরুদ্ধে দুরন্ত শতরান করে রাহানে বুঝিয়ে দিলেন, ‘হম কিসিসে কম নহি’৷

চলতি আইপিএলের প্রথম আটটি ম্যাচে রাজস্থান রয়্যালসকে নেতৃত্ব দেন রাহানে৷ ক্যাপ্টেন হিসাবে দলকে তেমন একটা সাফল্যের মুখ দেখাতে পারেননি তিনি৷ মাত্র দু’টি ম্যাচে জিতলেও রাহানের নেতৃত্বে ছ’টি ম্যাচে হার মানতে হয় রয়্যাসকে৷ ব্যাট হাতেও তেমন একটা নজর কাড়তে ব্যর্থ হচ্ছিলেন অজিঙ্কা৷ দু’টি অ্যাওয়ে ম্যাচে হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে ৭০ ও মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে ৩৭ রানের ইনিংস ছাড়া বলার মতো রান ছিল না তাঁর ব্যাটে৷

আরও পড়ুন: আইপিএল ফাইনাল চেন্নাই থেকে সরে হায়দরাবাদে

মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে গত ম্যাচে রাহানের বদলে রাজস্থান নেতৃত্ব তুলে দেয় স্টিভ স্মিথের কাঁধে৷ সেই ম্যাচে ১২ রানে আউট হলেও নিজেদের ডেরায় ঠিক পরের ম্যাচেই দিল্লির বোলিং লাইনআপকে একার হাতে চমকে দেন রাহানে৷ যদিও তাঁকে যথাযোগ্য সঙ্গত করেন দলনায়ক স্মিথ৷

শ্রেয়স আইয়ারদের বিরুদ্ধে রাজস্থান ইনিংসের গোড়াপত্তন করতে নেমে রাহানে ৬৩ বলে অপরাজিত ১০৫ রানের দুরন্ত ইনিংস খেলেন৷ আইপিএল কেরিয়ারে এটি তাঁর দ্বিতীয় সেঞ্চুরি৷ ইন্ডিয়ান প্রিমিয়র লিগে তিনি প্রথম শতরানটি করেছিলেন সাত বছর আগে৷ ২০১২ সালে চিন্নাস্বামীতে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের বিরুদ্ধে ৬০ বলে অপরাজিত ১০৩ রান করেছিলেন অজিঙ্কা৷ সেই নিরিখে এটি শুধু তাঁর সর্বোচ্চ আইপিএল ইনিংসই নয়, বরং টি-২০ কেরিয়ারের সব থেকে বড় ইনিংস৷

আরও পড়ুন: ওয়ার্নার-বেয়ারস্টোকে মিস করবে সানরাইজার্স

মূলত রাহানের শতরান ও স্টিভ স্মিথের হাফসেঞ্চুরিতে ভর করে দিল্লির বিরুদ্ধে রাজস্থান নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৯১ রান তোলে৷ অর্থাৎ জয়ের জন্য দিল্লির প্রয়োজন ১৯২ রান৷ একসময় রাহানেদের দু’শোর গণ্ডি টপকে যাওয়া কেবল সময়ের অপেক্ষা বলে মনে হচ্ছিল৷ শুরু থেকেই ওভার প্রতি ১০ রানের গড় বজায় রাখছিল রয়্যালস৷ তবে ৮টি বাউন্ডারির সাহায্যে স্মিথ ৩২ বলে ৫০ রান করে আউট হওয়ার পরেই ছবিটা বদলে যায়৷ স্মিথের এটি চলতি আইপিএলে তৃতীয় ও উপর্যুপরি দ্বিতীয় হাফসেঞ্চুরি৷

আরও পড়ুন: কুলদীপের ফর্ম নিয়ে চিন্তিত কেকেআর

১৫ ওভারে ২ উইকেটে ১৫০ রান তোলা রাজস্থান শেষ ৫ ওভারে আরও ৪ উইকেট হারিয়ে ৪১ রান যোগ করে৷ রাহানে গোটা ইনিংসে ১১টি চার ও ৩টি ছক্কা মারেন৷ খাতা খোলার আগেই রানআউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন স্যামসন৷ বেন স্টোকস ৮, টার্নার ০, বিনি ১৯ ও রিয়ান পরাগ ৪ রান করে আউট হন৷ রাবাদা ৩৭ রানের বিনিময়ে ২টি উইকেট নেন৷ ১টি করে উইকেট নিয়েছেন ইশান্ত শর্মা, অক্ষর প্যাটেল ও ক্রিস মরিস৷ সব থেকে কৃপণ বোলিং করেছেন ইশান্ত৷ তিনি ৪ ওভারে ২৯ রান খরচ করেছেন৷