টনটন: বৃষ্টির ভ্রূকুটি এড়িয়ে বিলেতের মাটিতে ছন্দে ফেরার চেষ্টায় বিশ্বক্রিকেটের মেগা ইভেন্ট। ঠিক তেমনই গত ম্যাচে ভারতের বিরুদ্ধে হার ভুলে সামনে তাকাতে মরিয়া ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া। সামনে ‘অনিশ্চিত’ পাকিস্তান। তাতে কী? টুর্নামেন্টে বাউন্সব্যাকের মরিয়া চেষ্টায় অ্যারন ফিঞ্চের নেতৃত্বাধীন ক্যাঙ্গারুবাহিনী।

সংযুক্ত আরব আমিরশাহির মাটিতে গত মার্চে পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের কাছে ০-৫ ব্যবধানে বিধ্বস্ত হওয়ার স্মৃতি এখনও টাটকা পাক শিবিরে। তবে বিশ্বকাপের আসরে দ্বিপাক্ষিক সিরিজে ব্যর্থতার প্রভাব পড়তে দিতে নারাজ ‘৯২ বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। ক্যারিবিয়ানদের বিরুদ্ধে অভিযানের শুরুটা বিশেষ সুখের হয়নি সরফরাজ অ্যান্ড কোম্পানির। কিন্তু আয়োজক ইংল্যান্ডকে ১৪ রানে হারিয়ে টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় ম্যাচেই দুরন্ত প্রত্যাবর্তন ঘটেছে পাকিস্তানের। ‘ফেভারিট’ ইংরেজদের হারিয়ে ১১ ম্যাচ পর জয়ের খরা কাটানো পাক শিবির তাই প্রত্যয়ী তুল্যমূল্য লড়াই ছুঁড়ে দেওয়ার বিষয়ে। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে তৃতীয় ম্যাচ যদিও পন্ড হয়েছে বৃষ্টির কারণে। তবে ইয়েলো ব্রিগেডের বিরুদ্ধে জয় ছাড়া কিছু ভাবছে না গ্রীন ব্রিগেড।

বিশ্বকাপের মঞ্চে অস্ট্রেলিয়া-পাকিস্তান দ্বৈরথ মানেই মজুত নানা মশলা, নানা উপকরণ। কোহলিদের বিরুদ্ধে হারের রেশ কাটিয়ে অস্ট্রেলিয়া ছন্দ ফিরে পাওয়ার লক্ষ্যে থাকলেও বিশ্বকাপের সপ্তদশ ম্যাচেও মজুত থাকছে প্রয়োজনীয় বারুদ। স্মিথ-ওয়ার্নার-ম্যাক্সওয়েলদের বিরুদ্ধে লড়াইটা যেমন ফকর জামান কিংবা বাবর আজমদের, ঠিক তেমনই স্টার্ক-কামিন্সদের পালটা পাক শিবিরে থাকছেন মহম্মদ আমির কিংবা ওয়াহাব রিয়াজরা। তাই গত ম্যাচে ভারতের বিরুদ্ধে হারে জয়ের ছন্দে তাল কাটলেও হাইভোল্টেজ ম্যাচে পাক ‘বধ’ করে সেই তাল ফের জুড়ে নিতে বদ্ধপরিকর অজিরা।

পেশিতে টান লাগায় এই ম্যাচে নির্ভরযোগ্য অল-রাউন্ডার মার্কাস স্টোওনিসকে পাচ্ছে না ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা। পরিবর্তে দলে কেন রিচার্ডসনের দলে ঢোকার সম্ভাবনা প্রবল। অন্যদিকে চোট-আঘাত সমস্যা না থাকায় সেরা একাদশই হাতে পাচ্ছে পাকিস্তান শিবির।

অস্ট্রেলিয়ার সম্ভাব্য একাদশ: অ্যারন ফিঞ্চ (অধিনায়ক), ডেভিড ওয়ার্নার, উসমান খোয়াজা, স্টিভ স্মিথ, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, অ্যালেক্স ক্যারি (উইকেটরক্ষক), কুল্টার-নাইল, প্যাট কামিন্স, মিচেল স্টার্ক, কেন রিচার্ডসন, অ্যাডাম জাম্পা।

পাকিস্তানের সম্ভাব্য একাদশ: ইমাম উল-হক, ফকর জামান, বাবর আজম, মহম্মদ হাফিজ, শোয়েব মালিক, সরফরাজ আহমেদ (অধিনায়ক/উইকেটরক্ষক), আসিফ আলি, শাদাব খান, হাসান আলি, ওয়াহাব রিয়াজ, মহম্মদ আমির।