তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: তিনটি হরিণের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠিত হয়েছে। সাত দিনের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট জমা করতে বলা হয়েছে। ঐ রিপোর্ট হাতে পেলেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। শুক্রবার বাঁকুড়ার গঙ্গাজলঘাটির অমরকাননে জেলা বনবান্ধব উৎসবে যোগ দিতে এসে একথা বলেন রাজ্যের বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়।

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার মুকুটমনিপুর সংলগ্ন বনপুকুরিয়া ডিয়ার পার্কে একটি শাবক সহ তিনটি হরিণের মৃতদেহ উদ্ধার হয়। এই ঘটনায় বনদফতরের দায়িত্বশীল ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে।

এদিন বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এই জেলায় হাতির হানায় ধারাবাহিক মৃত্যুর ঘটনা প্রসঙ্গে বলেন, ”এবিষয়ে দেশী ও বিদেশী হাতি বিশেষজ্ঞদের মতামত নেওয়া হচ্ছে। একই সঙ্গে বিভিন্ন ধরণের প্রচারমূলক কর্মসূচীও হাতে নেওয়া হয়েছে।” হাতির হানায় মৃত্যুর সংখ্যাটা শূণ্যতে নামিয়ে আনাই এখন তাঁর দফতরের মূল লক্ষ্য বলে তিনি জানান।

এই মুহূর্তে রাজ্যে বনকর্মীর সংখ্যা প্রায় ৫০ শতাংশ কম রয়েছে স্বীকার করে তিনি বলেন, ”পুলিশের আদলে বনকর্মীদেরও ভালো কাজের স্বীকৃতি স্বরুপ ‘পদক’ দেওয়ার চিন্তা ভাবনা রয়েছে।” বিষয়টি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জানানো হবে বলে তিনি জানান। একই সঙ্গে হাতি প্রবণ এলাকার মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীরা যাতে কোনও ধরণের সমস্যায় না পড়েন সে বিষয়ে বনদফতর সদা সতর্ক থাকবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

এদিন ‘বনবান্ধব’ উৎসবে বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরা সহ বন দফতরের আধিকারিক এবং শাসক দলের বেশ কয়েক জন বিধায়ক ও অন্যান্য জনপ্রতিনিধিরা।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা