মুম্বই- প্রাক্তন প্রেমিক রণবীর কাপুর প্রতারণা করেছিলেন। সেই নিয়ে ফের এক সাক্ষাৎকারে মুখ খুললেন অভিনেত্রী দীপিকা পাডুকোন। দীপিকা জানিয়েছেন রণবীরকে হাতে নাতে ধরে ফেলার পরে তিনি ক্ষমা চেয়েছিলেন।

সম্প্রতি এক জাতীয় সংবাদমাধ্যমের কাছে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, আমি খুব বোকা ছিলাম বলেই ওকে দ্বিতীয় সুযোগ দিয়েছিলাম। ও ক্ষমা চেয়েছিল বলেই। যদিও আমাকে সবাই বলত, ও এখনও ঠকিয়ে চলেছে। তার পরে ওকে আমি হাতেনাতে ধরে ফেলি। আমার বিষয়টা থেকে বেরোতে সময় লেগেছিল। কিন্তু বেরিয়ে যাওয়ার পরে আমি জানতাম, আমি আর কোনও দিন ফিরব না।

রণবীরের নাম না করেই দীপিকা বলেছেন, ও যখন প্রথম বার প্রতারণা করেছিল, আমি ভেবেছিলাম সম্পর্কটায় বা আমার মধ্যেই কোনও সমস্যা আছে। কিন্তু এটাই যদি কারও অভ্যেস হয়, তা হলে বুঝতে হবে সমস্যাটা তাঁরই। আমি সম্পর্কের জন্য অনেক কিছু করি। পরিবর্তে তেমন কিছু আশা করি না। আর একবার কেউ বিশ্বাসঘাতকতা করলে শ্রদ্ধা ও বিশ্বাস চলে যায়। এগুলিই সম্পর্কের ভিত।

সম্পর্কে যৌনতা নিয়েও দীপিকা এদিন কথা বলেন। তিনি বলেন, আমার কাছে ঘনিষ্ঠ হওয়া শুধুই শারীরিক নয়। এর সঙ্গে অনেক আবেগও জড়িয়ে থাকে। আমি সম্পর্কে থেকে কখনও কারোকে ঠকাইনি। আমার যদি কারোকে বোকাই বানানোর হয় তা হলে আমি সম্পর্কে কেন যাব। তার থেকে একা থেকেই মজা করা ভালো। কিন্তু সবাই এভাবে ভাবে না।

দীপিকা এই সাক্ষাৎকারে রণবীরের নাম নেননি। কিন্তু একথা সর্বজনবিদিত যে দীপিকা এক সময়ে রণবীরের সঙ্গেই সম্পর্কে থেকে প্রতারিত হয়েছেন। দীপিকাকে প্রতারণা করে রণবীর ক্যাটরিনা কাইফের সঙ্গে সম্পর্কে যান। যদিও সেই সম্পর্ক থেকেও বেরিয়ে যান রণবীর। এই মুহূর্তে বলিউডের আর এক প্রথম সারির অভিনেত্রী আলিয়া ভাটের সঙ্গে সম্পর্কে আছেন। অন্যদিকে রণবীর সিংকে ২০১৮-র নভেম্বরে বিয়ে করেছেন দীপিকা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।