মুম্বই: সম্প্রতি অ্যাসিড আক্রান্ত লক্ষী আগরওয়ালের বায়োপিকে অভিনয় করেছেন দীপিকা পাডুকোন। শুধু অভিনয় নয়, অ্যাসিড অ্যাটাক নিয়ে নানা ধরনের সতর্কতামূলক প্রচারও করেছেন তিনি। তবে, সম্প্রতি অভিনেত্রী চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছেন যে কীভাবে দোকানে দেদার বিকোচ্ছে অ্যাসিড। একদিনে ২৪ বোতল অ্যাসিড কিনে দেখিয়ে দিয়েছেন তিনি।

সম্প্রতি একটি ভিডিও প্রকাশ্যে এনেছেন দীপিকা। সেখানে স্টিং অপারেশন করে দেখিয়েছে যে কত সহজে আমাদের দেশে অ্যাসিড কেনা সম্ভব।

একটি সোশ্যাল এক্সপেরিমেন্ট করেছেন তিনি। সেখানে তাঁর টিমকে বাজারে পাঠানো হয়েছে, অ্যাসিড কীভাবে কেনা যায়, তা পরীক্ষা করতে। গাড়িতে বসে পুরো বিষয়টা মনিটর করেছেন তিনি।

মোটামুটিভাবে অ্যাসিড চাইলেই দোকানদার দিয়ে দিচ্ছেন। খুব বেশি প্রশ্ন করছেন না। কম ক্ষমতাসম্পন্ন অ্যাসিড দিলে কেউ কেউ বলছেন, আরও কড়া অ্যাসিড দিন। দোকানদার সেটাও দিয়ে দিচ্ছেন। কেউ আইডি চাইছেন না।

দীপিকার টিমের লোকজন যাঁরা মেকানিক বা প্লাম্বার সেজে দোকানে গিয়েছে, তারা দোকানদারকে এমনটাও বলছে যে, ‘ওই অ্যাসিড দিন, যাতে হাত-পা জ্বলে যায়।’ দোকানদারও সেইরকম আ্যাসিড বের করে দিচ্ছেন। এই বিষয়টা দেখে রীতিমত হতবাক অভিনেত্রী। মোট ২৪ বোতল অ্যাসিড কিনেছে দীপিকার টিম। ভিডিওতে তিনি এই বার্তাই দিয়েছে যে অ্যাসিড অ্যাটাক বন্ধ করতে সবার আগে অ্যাসিড বিক্রি বন্ধ হওয়া প্রয়োজন।

শেষে তিনি দেখিয়েছেন যে অ্যাসিড বিক্রির ক্ষেত্রে কোন কোনও নিয়ম মানা উচিৎ। ১. যে অ্যাসিড কিনছে তার বয়স ১৮ বছর হওয়া উচিৎ, ২. ক্রেতাকে আইডি প্রুফ দিতে হবে। ৩. ক্রেতাকে অ্যাড্রেস প্রুফ দিতে হবে। ৪. অ্যাসিড বিক্রেতার লাইসেন্স থাকা প্রয়োজন।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও