নয়াদিল্লি: একদিকে যখন মহাকাশে মানুষ পাঠানোর জন্য প্রস্তুত হচ্ছে রকেট, অন্যদিকে তখন সমুদ্রের একেবারে গভীরে পৌঁছতে বিশেষ যান তৈরি করছে ভারত। সেই যানে চেলেই মানুষ ডুব দেবে সমুদ্রের একেবারে তলদেশে। চাক্ষুষ করবে অতল সমুদ্রের তল। ভারতের ESSO-National Institute of Ocean Technology (NIOT) এই যান তৈরি করছে। পাঁচ বছরের মধ্যেই তৈরি হবে সেই ডুবো-যান আর খরচ হবে ৫০০ কোটি টাকা।

অত্যাধুনিক এই যানে চেপে সমুদ্রের তলায় ৬ কিলোমিটার পর্যন্ত যেতে পারবে মানুষ। একটি যানে তিন পর্যন্ত যেতে পারবে। সেখানে থাকা মূল্যবান খনিজের সন্ধানও করতে পারবে সহজেই। আরও অনেক প্রাণ আবিষ্কারও হতে পারে। এই যান তৈরি হলে বিশ্বের মাত্র কয়েকটি দেশের মধ্যে একটি হবে ভারত, যারা যানে চেপে সমুদ্রের তলায় যাওয়ার ক্ষমতা রাখে। বর্তমানে চিন, রাশিয়া, আমেরিকা, ফ্রান্স ও জাপানের হাতে এই ক্ষমতা রয়েছে।

NIOT ডিরেক্টর সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, সরকারের অনুমোদন পেলেই তাঁরা কাজ শুরু করবেন। তার আগে তাঁদের ডিজাইন খতিয়ে দেখবে ইসরো, ডিআরডিও ও আইআইটির গবেষকেরা। একটি জাহাজ থেকে জলের তলায় ডুবে যাবে ওই যান। ৮ থেকে ১০ ঘণ্টা থাকতে পারবে সেখানে। একটি রোবোটিক হাত থাকবে যেটি সমুদ্রের তলদেশ থেকে বিভিন্ন স্যাম্পল নিয়ে আসতে পারবে। কাঁচ থেকে বাইরের দৃশ্য স্পষ্ট দেখা যাবে। বড় আকারের যান তৈরির আগে ৫০০ মিটার গভীরে যাওয়ার জন্য বছর তিনেকের মধ্যেই একটি ক্ষুদ্র আকারের যান তৈরি করা হবে।

টাইটানিয়াম দিয়ে তৈরি হবে এই যান। এটি জলের চাপ সহজেই সহ্য করতে পারে।