কলকাতাঃ শোভন এবং বৈশাখী চট্টোপাধ্যায়ের বিজেপিতে যোগদানের দিনেই রহস্যজনকভাবে দিল্লিতে বিজেপির দফতরে পৌঁছে যান দেবশ্রী রায়। যদিও তা নিয়ে কম বিতর্ক হয়নি। বিজেপি সদর দফতরে রায়দিঘীর বিধায়ককে দেখেই তেলে বেগুনে জলে ওঠেন কলকাতা পুরসভার প্রাক্তন মেয়র। দেবশ্রী রায় যোগ দিলে তিনি যে কোনওভাবেই বিজেপিতে যোগ দেবেন না বলে তা সাফ জানিয়ে দেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। পরিস্থিতি মোকাবিলাতে নামতে বাধ্য হন বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব। কিন্তু প্রশ্ন উঠতে থাকে কার নির্দেশে দেবশ্রী রায়কে বিজেপির দফতরে যোগদানের জন্যে নিয়ে আসা হয়েছে? যদিও সেই প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেননি মুকুল-দিলীপ কেউই।

শোভনের বিরোধীতায় আটকে যায় দেবশ্রীর যোগদান। কিন্তু সেই সময় দেবশ্রীর যোগদান না হলেও একাধিকবার বিজেপিতে তিনি আসতে পারেন বলে জল্পনা উঠতে থাকে। কিন্তু এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে নারাজ ছিলেন শাসকদলের এই বিধায়ক। এমনকি বিজেপি’তে যোগদানের ক্ষেত্রে প্রশ্ন করা হলেও বিষয়টি বারবার এড়িয়ে গিয়েছেন দেবশ্রী।

কিন্তু আজ সোমবার অভিনেত্রী তথা রায়দিঘির তৃণমূল বিধায়ক দেবশ্রী রায় জানিয়েছেন, বিজেপি নয়, তৃণমূলেই রয়েছেন তিনি। এদিন বিধানসভায় স্ট্যান্ডিং কমিটির বৈঠকে যোগ দিতে এসেছিলেন দেবশ্রী। সেখানেই সংবাদমাধ্যমের এক প্রশ্নের উত্তরে দেবশ্রী বলেন, “আমরা সঙ্গে দলের কিছু ভুল বোঝাবুঝি হয়েছিল। এখন সব মিটে গিয়েছে। সবাই জানে আমি তৃণমূলের আছি।”

উল্লেখ্য, এর আগে দেবশ্রী রায়ের শুভবুদ্ধির উদয় হয়েছে বলে মন্তব্য করেন তৃণমূলের মহাসচিব। পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানান, উনি এখনও তৃণমূল বিধায়ক৷ অন্যদিকে, নাম না করে শোভন-বৈশাখীকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, বিতর্ক তো ত্রিকোণ সম্পর্ক নিয়ে ৷ এতে কোনও রাজনীতি নেই ৷ দেবশ্রী রায়, শোভন চট্টোপাধ্যায় ও বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে পাড়ার চায়ের ঠেক থেকে বঙ্গ রাজনীতির অন্দর-সর্বত্রই মুখরোচক আলোচনা চলছে ৷ পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের এই মন্তব্য যে সেই আলোচনায় রসদ জোগাবে তা বলাই বাহুল্য৷