কলকাতা: বাংলা থেকে এবারে মোদীর মন্ত্রিসভায় নতুন মুখ দেবশ্রী চৌধুরী। দীর্ঘদিন ধরে বিজেপিতে থাকা এই নেত্রীকে বাংলার ১৮ জন সাংসদের মধ্যে বেছে নেওয়া হয়েছেন। আর দ্বিতীয়বার মন্ত্রী হয়েছেন বাবুল সুপ্রিয়।

৪৮ বছর বয়স দেবশ্রীর। তার মধ্যে প্রায় ৩০ বছরের রাজনৈতিক জীবন। অর্থাৎ দীর্ঘদিন ধরেই দলীয় সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত তিনি। বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হিসেবে এদিন শপথ নিয়েছেন রায়গঞ্জের সাংসদ দেবশ্রী চৌধুরী। জয়ের পরই জেলায় রেল সংযোগের উন্নতিতে কাজ করবেন বলে জানিয়েছেন। উত্তরবঙ্গের উন্নতিতেও কাজ দেবেন বলে জানিয়েছেন এই বিজেপি নেত্রী।

রায়গঞ্জে ২০১৯-এ কঠিন লড়াই ছিল দেবশ্রীর। ২০১৪-র সিপিএম সাংসদ মহম্মদ সেলিমের পাশাপাশি লড়াইতে ছিলেন কংগ্রেসে দীপা দাশমুন্সি। অর্থাৎ প্রতিদ্বন্দ্বীরা প্রত্যেকেই হেভিওয়েট। লড়াইতে ছিলেন তৃণমূলের কানাইয়ালাল আগরওয়ালও। তাঁদের সঙ্গে লড়ে জয় ছিনিয়ে এনেছেন দেবশ্রী।

২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের এই প্রাক্তনী। সেবার কেন্দ্র ছিল বর্ধমান দুর্গাপুর আসন। কিন্তু জয়ী হননি তিনি।

বিজেপির রাজ্য সভাপতির পদ থেকে রাহুল সিনহার চলে যাওয়ার সময়ে উঠে এসেছিল দেবশ্রী চৌধুরীর নাম। যদিও পরে সেই দায়িত্ব পান দিলীপ ঘোষ।

২০১৬-র ডিসেম্বরে মৌলনা নূর রহমান বরকতির মন্তব্যের জেরে বৈষ্ণবনগরের বিধায়কের সঙ্গে বিক্ষোভ দেখাতে গিয়ে গ্রেফতার হয়েছিলেন দেবশ্রী। দীর্ঘদিন ধরেই রাজনৈতিক লড়াইতে ছিলেন দেবশ্রী। তাই ১৮ জন সাংসদের মধ্যে তাঁকে অগ্রাধিকার দিয়েছেন মোদী ও অমিত শাহ।

যদিও বাংলা এবার অভাবনীয় ফল করার জন্য একাধিক মন্ত্রী পাবে বলে অনেকেই আশা করেছিল। বৃহস্পতিবার শপথ নেন দেবশ্রী চৌধুরী ও বাবুল সুপ্রিয়। দেবশ্রীকে নারী ও শিশুকল্যান দফতরের প্রতিমন্ত্রী করা হয়েছে।