ইসলামাবাদ: পাকিস্তানের মাটিতে প্রচণ্ড তুষারপাত। গত কয়েকদিনে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১০৪-এ দাঁড়িয়েছে। সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। অন্যদিকে, ভয়াবহ তুষারপাতে আহত হয়েছে অন্তত ৯৬ জন। পাকিস্তানের একটা বিস্তির্ণ অঞ্চল জুড়েই এমন তুষারপাত চলছে।

পূর্বাভাস, আগামী কয়েকদিন আরও ভারী তুষারপাত হবে। ফলে এই পরিস্থিতিতে অবস্থা খুবই খারাপ হবে বলে মনে করা হচ্ছে। জানা যাচ্ছে, বেলুচিস্তান সবচেয়ে বেশি দুর্যোগ কবলিত হয়েছে বলে পাকিস্তানের জাতীয় দুর্যোগ মোকাবিলা দফতরের তরফে জানানো হয়েছে।

দফতরের তরফে আরও জানানো হয়েছে যে, সীমান্তের ওপারে অধিকৃত কাশ্মীরে হিমবাহ ধসে ৭৭ জন নিহত এবং ৫৬ জন আহত হয়েছে। অন্যদিকে, বেলুচিস্তানে আহত হয়েছে ২৩ জন। এছাড়া, খাইবার-পাখতুনখোয়া এবং গিলগিট-বালতিস্তানে মারা গেছে পাঁচজন।

ভয়াবহ তুষারপাতের কারণে পাকিস্তানের অন্তত ২৩৬টি বাড়ি ভেঙে পড়েছে। যার মধ্যে অধিকৃত কাশ্মীরে ধ্বংস হয়েছে অন্তত ২০০ বাড়ি। খাইবার পাখতুনখোয়া এবং গিলগিট-বালতিস্তানে বিধ্বস্ত হয়েছে ৩১টি ঘরবাড়ি। তুষার কবলিত অসহায় মানুষদের মাঝে কম্বল, তাবু, রেশন, প্লাস্টিকের পাটি, সোলার লাইট, রান্নার সামগ্রী, স্লিপিং ব্যাগ, জুতা, কাপড়-চোপড়, শিশুদের চিকিৎসার জন্য প্রাথমিক বক্স এবং জলের বোতল বিতরণ করা হয়েছে।

এছাড়া, দুর্যোগ কবলিত লোকজনের ভেতরে বিভিন্ন রকমের খাদ্য সামগ্রীও বিতরণ করা হয়। পাশাপাশি দুর্যোগে আটকে পড়া লোকজনকে উদ্ধারের জন্য পাক সরকারের পক্ষ থেকে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এর একদিন আগে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ত্রাণ বিতরণ কাজ পর্যবেক্ষণের জন্য অধিকৃত জম্মু-কাশ্মীর সফর করেন।