কলকাতা: স্বপ্ন মনের এক বিশেষ অবস্থা যেখানে বাস্তবের আভাস পাওয়া যায়। স্বপ্ন না তো জেগে দেখা যায় আর না ঘুমিয়ে। স্বপ্ন আমরা তখন দেখি যখন এই দুইয়ের মধ্যবর্তী অবস্থায় থাকি আমরা। যে কোনো ধরণের স্বপ্ন দেখার পেছনে থাকে কোনো বিশেষ অর্থ যা অনেক সময়েই আমরা জানি না ও এড়িয়ে যাই। এর পেছনে গ্রহ ও রাশিও থাকে দায়ী। তাই কোনো স্বপ্ন দেখলে তা নিয়ে হেলাফেলা করবেন না। তাড়াতড়ি অভিজ্ঞ কারুর থেকে এর অর্থ জেনে নেবেন।

বেশিরভাগ স্বপ্ন নাকি মনের ভাবনা ও রোগ থেকে সৃষ্টি হয়, এমনটাই বলেন বিজ্ঞরা। এই প্রকারের স্বপ্ন নাকি বর্তমান বা ভবিষ্যতের উপর গভীরভাবে প্রভাব ফেলে। কিছু স্বপ্ন সচেতন করে দেয় আমাদের। ভবিষ্যতের প্রতি বিশেষ সংকেত দেয় স্বপ্ন আর শুভ বা অশুভ ইঙ্গিত দিয়ে সাবধান করে দেয়। বলা হয় সকালে দেখা স্বপ্ন নাকি অনেক সময়েই সত্যি হয়।

আরো পোস্ট- আসছে নবরাত্রি, জানুন কারা রাখতে পারবেন না ব্রত

যদি স্বপ্নে কারুর মৃত্যু দেখেন তাহলে বুঝবেন ওই ব্যক্তি গভীর সংকটে ছিলেন। তবে এখন তার সেই ফাঁড়া কেটে গেছে। তার আয়ু বেড়ে গেছে। যদি আপনার স্বপ্নে পূর্বেই মারা গেছেন এমন চেনা পরিচিত কাউকে দেখতে পান তাহলে বুঝবেন যে হয়তো তার কোনো ইচ্ছে অসম্পূর্ণ রয়ে গেছে যা তিনি আপনাকে জানাতে চান বা আপনাকে তিনি তার মৃত্যু সংক্রান্ত কোনো বিশেষ ঘটনার প্রতি ইঙ্গিত করছেন আপনাকে।

আবার আমরা অনেক সময়েই স্বপ্নে সাপ দেখি ও ভয় পেয়ে যাই। ভয় পেতে হবে না। কারণ এর ও আছে কোনো অর্থ। এমন স্বপ্ন বোঝাতে চায় যে আপনার বেপরোয়াভাবের ফলে আপনি আগামীকালে কোনো সমস্যায় পড়তে চলেছেন। নিজের দায়িত্বের প্রতি অবহেলা করবেন না এটাই বোঝতে চায় এই স্বপ্ন । আবার এটা এও মনে করায় যে আপনার কোনো বিশেষ কাজ সম্পাদন করতে আপনি ভুলে গেছেন। তাই এই ধরণের স্বপ্নগুলিকে অবহেলা না করে বরং নিজের কার্যসিদ্ধির দিকে ধ্যান দিন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।