মালদহ: দূরপাল্লার ট্রেন থেকে এক মহিলার মৃতদেহ উদ্ধার ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়াল মালদহে। বুধবার রাতে ডিব্রুগড় এক্সপ্রেসের কামরা থেকে বছর পঞ্চাশের ওই মহিলার মৃতদেহ উদ্ধার হয়। যাত্রীরাই দেহটি দেখে জিআরপি-তে খবর দেন। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে মহিলার দেহটি উদ্ধার করে। মৃতদেহটি ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়। অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

জিআরপি সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত ওই মহিলার নাম কৃষ্ণা দে চৌধুরী। কলকাতার লেকটাউনের বাসিন্দা ওই প্রৌঢ়া। ট্রেনে ওই মহিলা একাই ছিলেন বলে জানিয়েছেন অন্য যাত্রীরা। তিনি আগে থেকে অসুস্থ হয়েই ট্রেনে উঠেছিলেন কিনা জানা যায়নি। ট্রেনের কামরায় থাকা কয়েকজন যাত্রী জানিয়েছেন, ওই মহিলা ট্রেনে অচৈতন্য অবস্থায় পড়েছিলেন। তাঁর পাশে কাউকেই দেখা যায়নি। আপাতত সব দিক খতিয়ে দেখছে পুলিশ। তাঁর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে তদন্ত সম্পর্কিত একাধিক তথ্য জানার চেষ্টা করছে পুলিশ।

এদিকে, মালদহে জিআরপি-র আইসি ভাস্কর প্রধান জানিয়েছেন, ওই মহিলা যাত্রীর সঙ্গে একটি ব্যাগ ছিল। সেই ব্যাগ থেকে তাঁর পরিচয়পত্র মিলেছে। তাঁর নাম কৃষ্ণা দে চৌধুরি। কলকাতার লেকটাউনের বাসিন্দা ওই মহিলা। মৃত ওই মহিলা নিউ জলপাইগুড়ি যাচ্ছিলেন। ট্রেনের মধ্যে হঠাৎ অসুস্থ হয়েই তাঁর মৃত্যু হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

অন্যদিকে, ট্রেনের মধ্যে কোনও যাত্রী অসুস্থ হলেও কেন সময়মতো তা অন্যদের নজরে এল না তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। যাত্রীদের নিরাপত্তার এই খামতির বিষয়টিতে রেলের বিরুদ্ধে উঠছে অভিযোগ। চলন্ত ট্রেনে কোনও যাত্রী অসুস্থ হলে তা কেন রেলকর্মীদেরও নজর এড়াল তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন যাত্রীরা।