ফেসবুকের লুক ব্যাক ভিডিও ইতিমধ্যেই বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে৷ প্রত্যেকেই নিজের লুক ব্যাক ভিডিও পোস্ট করেছেন তাদের নিজস্ব টাইমলাইনে৷ এক হতভাগ্য পিতাও তেমনই তার একমাত্র মৃত সন্তানের লুক ব্যাক ভিডিও দেখতে চেয়েছিলেন৷ তাই, মানবিক ফেসবুকও সে অনুরোধ অস্বীকার করতে পারল না৷
জন বার্লিন৷ তাঁর ছেলের লুক ব্যাক ভিডিও দেখবেন বলে অনেক চেষ্টা করছিলেন৷ কিন্তু, ছেলের মৃত্যুর পর অনেক চেষ্টা করেও  অ্যাকাউন্টটি কিছুতেই খুলতে পারেননি জন৷ তাই, ছেলের একটি লুক ব্যাক ভিডিও তৈরি করে ইউটিউবে সেটি আপলোড করেন তিনি ও ফেসবুককে অনুরোধ করেন এটি প্রচার করার জন্য৷
বেশ কয়েকদিন বাদে জন একটি ফোন পান৷ স্বয়ং মার্ক জুকারবার্গ জনকে ফোনে জানান, এই ভিডিওর মাধ্যমে তিনি জন ও জনের মতো আরও অনেকের সাহায্য করতে চান৷
ফেসবুকের সক্রিয়তায় জন ও তাঁর পরিবার দু’বছর আগে হারানো সন্তান জেসির ৬২ সেকেন্ডের লুক ব্যাক ভিডিওটি দেখতে পেলেন৷
ফেসবুক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, পৃথিবীর অসংখ্য মানুষ এই সুবিধা উপভোগ করেন৷ তাই, সকলেই অনুরোধ রাখা তাদের পক্ষে বেশ কষ্টসাধ্য৷ কিন্তু, জনের এই বিনম্র নিবেদন এবং তাঁর জীবনকাহিনী সামাজিক সাইট ফেসবুককে ওই পদক্ষেপ নিতে বাধ্য করেছে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.