স্টাফ রিপোর্টার, মেদিনীপুর: গত দু’মাস ধরে যার খোঁজে নাজেহাল সেই বাঘের সন্ধান পাওয়া গেল অবশেষে৷ তবে জীবিত নয়৷ মৃত অবস্থায়৷

পশ্চিম মেদিনীপুরের লালগড়ে তাকে ঘিরে যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছিল, সেই লালগড়ের জঙ্গলেই৷ শুক্রবার সকালে বনকর্মীরা বাঘের দেহটি খুঁজে পাওয়া যায় বলে জানা গিয়েছে৷

আরও পড়ুন: বাঘ ধরতে ‘কালী প্রতাপে’র খোঁজ করছে বন দফতর

প্রসঙ্গত, জঙ্গলমহলের প্রায় প্রতিটি জায়গাতেই বাঘের ভয়ে আতঙ্কিত ছিল সকলে৷ বহু জায়গাতে তার পায়ের ছাপ দেখা যায়৷ বেশ কয়েকজন বাঘের আক্রমণে গুরুতর জখমও হয়েছেন৷ এমনকী বাঘ ধরতে গিয়ে দমবন্ধ হয়ে প্রাণ হারিয়েছিলেন দু’জন বনকর্মী৷

কিন্তু কোনওভাবেই বাঘের দেখা মেলেনি৷ ফলে এ নিয়ে ক্রমশ সন্দেহ দানা বাঁধতে শুরু করে৷ বাঘ নাকি, বাঘের নাম করে মাওবাদীরা এই আতঙ্ক ছড়াচ্ছে, তা নিয়েও প্রশ্ন তুলতে শুরু করেন অনেকে৷ তবে এর মধ্যে একদিন হঠাৎ বাঘের দেখা মেলে৷ লালগড়ের জঙ্গলে একটি গর্তে আটকে পড়ে বাঘটি৷ তাকে ধরতে জাল পাতা হয়৷ কিন্তু সেই জাল ছিঁড়ে বাঘটি পালিয়ে গিয়েছিল৷

আরও পড়ুন: বাঘের ‘খোঁজ’ মিলল মধুপুরের জঙ্গলে

তবে শেষ পর্যন্ত লালগড়ের জঙ্গলে তার দেহকে ঘিরে অনেক প্রশ্নের উত্তর মিলল৷ বন দফতর ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, শুক্রবার দুপুর দেড়টা নাগাদ খবর আসে লালগড়ের বাঘঘরায় দেখা মিলিছে অধরা সেই রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের৷ তার পর তাকে ধরার প্রস্তুতি শুরু হয়৷ কিন্তু এর পরই জানা যায় বাঘটি সেখানে মৃত অবস্থায় পড়ে রয়েছে৷

এর ফলে এই ঘটনায় নতুন করে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে৷ কারণ, বাঘের দেহে একাধিক আঘাতের চিহ্ন মিলেছে! তার শরীরের একাধিক জায়গায় বল্লমের আঘাত রয়েছে৷ বনকর্মীদের অনুমান, বল্লমের আঘাতেই কি মৃত্যু হয়েছে বাঘটির? তাহলে কে মারল, সেই প্রশ্নও উঠছে৷ একই সঙ্গে সকলেই জানতে চাইছেন, বন দফতর সক্রিয় থাকা সত্ত্বেও কীভাবে ঘটল এমন ঘটনা?

আরও পড়ুন: বাঘের খোঁজ না পেয়ে চাপ বাড়ছে ত্রস্ত বন দফতরের

সূত্রের খবর, বন দফতরের মুখ্য বনপাল রবিকান্ত সিনহা জানিয়েছেন, বাঘটিকে শেষ পর্যন্ত পাওয়া গেলেও, দুঃখের বিষয় এটি মৃত অবস্থায় হাতে এল৷ কী করে মৃত্যু হল, তা নিয়ে তদন্ত চলছে৷ খুব শীঘ্রই জনগণকে সঠিক তথ্য দেওয়া সম্ভবপর হবে বলেই আশা করা হচ্ছে৷