চেন্নাই: আইপিএলে স্বপ্নের ফর্মে রয়েছেন এবিডি ডি’ভিলিয়ার্স৷ রবিবারও ব্যাট হাতে বিস্ফোরক ইনিংস খেলে নাইটদের বিরুদ্ধে দলকে জেতান প্রাক্তন প্রোটিয়া অধিনায়ক৷ চলতি বছর টি-২০ বিশ্বকাপের কথা ভেবে অবসর ভেঙে জাতীয় দলে ফিরতে পারেন এবিডি৷ এমনই ইঙ্গিত দিলেন প্রাক্তন প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান৷

রবিবার চিপকে কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিরুদ্ধে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাটিংকে নেতৃত্ব দেন এবি৷ মাত্র ৩৪ বলে ৭৬ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন প্রাক্তন প্রোটিয়া অধিনায়ক৷ তাঁর ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের বিস্ফোরক ব্যাটিংয়ে ভর করে নাইটদের ৩৮ রানে হারায় বিরাট কোহলির দল৷ শুধু এই ম্যাচ নয়, আগের ম্যাচেও দারুণ ব্যাটিং করে দলকে জেতাতে বড় ভূমিকা নিয়েছিলেন তিনি৷

২০১১ সাল থেকে আরসিবি-র জার্সিতে আইপিএল খেলছেন এবি৷ এবার ১০ বছরের পূর্তিতে শুরু থেকেই দারুণ ফর্মে রয়েছেন ডি’ভিলিয়ার্স৷ রবিবার নাইট ম্যাচের পর ভার্চুয়াল প্রেস মিটে অবসর ভেঙে জাতীয় দলে ফেরার ইঙ্গিত দেন এবি৷ আইপিএল শেষ হলেই দক্ষিণ আফ্রিকা দলের কোচ মার্ক বাউচারের সঙ্গে কথা বলবেন তিনি৷

এবিডি বলেন, ‘ফিটনেস ও ফর্মের কথা ভেবে আমি আগ্রহী৷ আমরা সেরা ১৫ জন এক সঙ্গে হতে পারবে দারুণ হবে৷ পরিকল্পনামাফিক এগোতে হবে৷ আইপিএল শেষে আমি বাউচারের সঙ্গে কথা বলব৷’ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এবিডি-র ফেরার সম্ভাবনা উস্কে দিলেন প্রোটিয়া কোচ৷ আইপিএল খেলতে ভারতে আসার আগে এ নিয়ে তাঁর কথা হয়েছিল বলেও দু’দিন আগেই জানিয়েছেন বাউচার৷

তিনি বলেন, ‘আইপিএলে খেলতে যাওয়ার আগে আমার সঙ্গে এ ব্যাপারে ওর কথা হয়েছে৷ আলোচনার রাস্তা এখনও খোলা রয়েছে৷ এবি এমন একজন ব্যাটসম্যান, যিনি আইপিএলে নিজেকে নিঙড়ে দেয়৷ ওর ফর্ম দেখে অনেকেই বলেছে, ওয়ার্ল্ড ক্রিকেটে এখনও এইভাবেই আধিপত্য দেখাতে পারে এবি৷’ ২০১৮ সালের মে মাসে হাঠাৎ করেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নেন ডি’ভিলিয়ার্স৷

এর আগে ২০১৯ ওয়ান ডে বিশ্বকাপে এবিডি-র অবসর ভেঙে আন্তর্ডজাতিক ক্রিকেটে ফেরার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছিল৷ প্রাক্তন প্রোটিয়া অধিনায়ক ফ্যাফ ডু’প্লেসিস জানিয়েছিল, টিম সিলেকশন মিটিংয়ের আগের দিন তাঁকে ফোন করেছিলেন এবিডি৷ কিন্তু টিম ম্যানেজমেন্টের বক্তব্য ছিল এটা অনেক দেরি হয়ে গিয়েছে৷’ কিন্তু এবার এবি অবসর ভেঙে জাতীয় দলে ফিরলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.