শেখর দুবে, আসানসোল: বাংলার রাজনীতিতে অভিনেতা, গায়ক, লেখকদের রাজনীতিতে আসার ট্রেন্ড রয়েছে। সম্প্রতি তা সংখ্যায় বেড়েছে। কিন্তু রাজনীতিতে আসার পরও অভিনেতারা নেতা হয়ে উঠতে পারেন না। সাংসদ হয়েও থেকে যান আড়ালেই। এ বিষয়ে অন্যদের থেকে একেবারেই আলাদা একসময় বলিউডের নামী গায়ক এবং পরবর্তীকালে টলিউড অভিনেতা বাবুল সুপ্রিয়।

২০১৪ সালে বিজেপির টিকিটে আসানসোল থেকে প্রার্থী হন বাবুল। তারপর থেকেই কিন্তু বারবার বাললার রাজনীতি চর্চায় তার নাম উঠে এসেছে। প্রথমবারেই আসানসোল থেকে জিতে সাংসদ এবং কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী। সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে আবারও আসানসোল থেকে বিজেপির প্রার্থী বাবুল। রাজ্যে চতুর্থ দফার ভোটে নিজের লোকসভা কেন্দ্রে মাটি কামড়ে পড়ে রয়েছেন বাবুল।

যে সমস্ত বুথে বিজেপি এজেন্টদের ঢুকতে না দেওয়ার অভিযোগ উঠছে সেখানেই গাড়ি নিয়ে পৌঁছে যাচ্ছেন এই গায়ক টার্ন অভিনেতা। আসানসোলে একটি ভোটগ্রহণ কেন্দ্রে বাবুলের গাড়িতেও হামলাও হয়েছে। একটি ভোট গ্রহণ কেন্দ্রের বাইরে বাবুলের গাড়ি ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন তৃণমূল সমর্থকরা। কিন্তু এসব পাত্তা না দিয়ে গাড়ি নিয়ে বুথে বুথে ঘুরে বেড়াচ্ছেন অভিনেতা থেকে পুরোদস্তুর নেতা হয়ে ওঠে বাবুল। এই লোকসভা কেন্দ্রে শাসক দলের প্রার্থী অভিনেত্রী মুনমুন সেন। তাঁকে কিন্তু ভোটের দিন লোকসভা কেন্দ্রের কোনও বুথের আশেপাশেও দেখা যায়নি।