ঘুম: আবহাওয়া বিভাগের বার্তা তুষারপাতের মুখ দেখবে শৈল শহর দার্জিলিং। কিন্তু পড়ি পড়ি করেও পড়েছিল না। তবে সান্দাকফু ও ফালুটে বরফে ঢেকে থাকা ছবি দেখে আশায় বুক বাঁধছিলেন অনেকেই। সেই আশায় রাশি রাশি বরফ ছড়িয়ে দিল প্রকৃতি।

দার্জিলিংয়ের বিভিন্ন সোশাল সাইট গ্রুপ ও স্থানীয় ওয়েব মাধ্যমে এলো টাইগার হিলের তুষারপাত মুহূর্ত। বরফে ঢেকে থাকা এই সূর্য ওঠার ভিউ পয়েন্টে এমনিতেই উচ্চতাজনিত কারণে মূল দার্জিলিং শহরের তুলনায় বেশি শীতল। দূষণের মাত্রাও কম। তাই প্রকৃতি এখানে বরফ ঢেলে দিয়েছে।

টাইগার হিলের চারপাশ তুষারে ঢেকে রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে এবার মূল দার্জিলিং শহর ও ঘুম স্টেশনও বরফে ঢাকতে চলল।

যে নিম্মচাপের কারণে দক্ষিণ বঙ্গে বৃষ্টিপাত চলেছে সেই মেঘ সরল উত্তরের দিকে। ফলে শিলিগুড়ি, জলপাইগুড়িতে প্রবল ঠাণ্ডার সঙ্গে বৃষ্টি উপরি ঠাণ্ডা বয়ে এনেছে। সম্প্রতি শিলিগুড়ি তে শিলাবৃষ্টি প্রায় তুষারপাতের মতো পরিস্থিতি তৈরি করেছিল।

আবহাওয়া বিভাগের ধারণা, নিম্নচাপের বৃষ্টিতেই দার্জিলিং শহরে তুষারপাতের সম্ভাবনা প্রবল। আপাতত টাইগার হিলের তুষার দেখতে খোদ দার্জিলিং শহরবাসীর অনেকেই যাচ্ছেন। তেমনই গিয়েছেন কিছু পর্যটক।

মেঘ কাটলেই হু হু করে নামবে পারদ সূচক। আকাশ পরিষ্কার হবে। তখন আরও উজ্জ্বল দেখাবে কাঞ্চনজঙ্ঘা-কে। আর কাঞ্চনের পদতলে শৈলরানি দার্জিলিং কড়ি গুনছে তুষারের অপেক্ষায়।