ভোপাল: ফের সামনে এল জাতপাতের জেরে ঘটা নৃশংস এক ঘটনা। দলিত সম্প্রদায়ের এক ব্যক্তিকে অকথ্য নির্যাতন করে খুন করা হল মধ্যপ্রদেশের ছাত্তারপুর এলাকায়। জানা গিয়েছে, উচ্চবর্ণের কিছু লোকজনের দ্বারা নির্যাতিত হয়ে মারা গিয়েছেন ওই ব্যক্তি। বিষয়টি নিয়ে শুরু হয়েছে তদন্ত। তবে একাধিকবার এই ধরনের ঘটনা সামনে আসাতে ক্ষুব্ধ সকলেই।

অভিযোগ, পিকনিকের মধ্যে ওই ব্যক্তি ঢুকে পড়ে খাবারে হাত দিয়েছিলেন। আর তারপরেই তার উপরে চড়াও হন সেখানকার মানুষজন। জানা গিয়েছে, ২৫ বছর বয়সী মৃত ওই ব্যক্তির নাম দেবরাজ অনুরাগ। জানা গিয়েছে, ওই ব্যক্তিকে ডাকা হয়েছিল জায়গাটা পরিস্কার করে দেওয়ার জন্য।

ঘটনাটি ঘটেছে কিশানপুর গ্রামে। অভিযুক্তদের নাম ভরা সনি এবং সন্তোষ পাল। যখন তারা দুজনে দেখেছিলেন নিজের জন্য ওই নির্যাতিত ব্যক্তি খাবার নিচ্ছে সেই সময়েই তার উপরে চড়াও হয়ে নির্যাতন করতে শুরু করে। যার জেরে ২৫ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি মারা যান।

ঘটনার পরেই ওই দুই অভিযুক্ত ওই এলাকা থেকে পালিয়ে যায়। যদিও ওই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত থাকার কারণে বাকি দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়। জানা গিয়েছে, ইতিমধ্যে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে বিষয়টি নিয়ে। পাশাপাশি শুরু হয়েছে তদন্ত। এর আগেও একাধিকবার এই ধরনের ঘটনা সামনে আসাতে অবাক হয়েছিলেন দেশের মানুষজন। পলাতক দুই অভিযুক্তকে ধরার চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।