চেন্নাই: ভিন জাতে বিয়ের ‘অপরাধে’ দলিত দম্পতির উপর লক্ষাধিক টাকার জরিমানা চাপাল খাপ পঞ্চায়েত৷ তাদের নিদানেই ওই দম্পতিকে ঢুকতে দেওয়া হল না মন্দির প্রাঙ্গনে৷ ঘটনাটি তামিলনাড়ুর তিরুপাথর জেলার৷

২৬ বছরের কানাগরাজ আর ২৩ বছরের জয়াপ্রিয়া যথাক্রমে মুরাচা পায়ারায় এবং থামান্না পারায়ার সম্প্রদায়ের সদস্য৷ দু’জনেই তফশিলি গোষ্ঠীর মধ্যেই পড়েন৷ কিন্তু তাঁদের সম্পর্কে রাজি ছিল না জয়াপ্রিয়ার বাবা-মা৷ ২০১৮ সালে চেন্নাইতে পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করেন তাঁরা৷ গত বছর করোনার দাপটে লকডাউনে কাজ হারিয়ে গ্রামে ফেরেন কানাগরাজ ও জয়াপ্রিয়া৷ কিন্তু তাঁদের ফেরার আগেই জরিমানা ধার্য করে রেখেছিল খাপ পঞ্চায়েত৷ কোনও দিন গ্রামে পা রাখলেই তাঁদের আড়াই লক্ষ টাকা জরিমানা দিতে হবে বলে নিদান দেয় খাপ৷

কানাগরাজ বলেন, ‘‘ভিন জাতে বিয়ে করলে জরিমানা দেওয়ার রেওয়াজ বহু দিন ধরেই আমাদের গ্রামে প্রচলিত৷ কিন্তু সাধারণত তা পাঁচ থেকে দশ হাজার টাকা৷ কিন্তু আমাদের জন্য তা আড়াই লক্ষ টাকা করা হয়েছে৷’’ তিনি আরও বলেন, ‘‘আমি ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত দিতে প্রস্তুত৷ কিন্তু তা নিতে রাজি নন পঞ্চায়েত প্রধান৷ এখন একটা টাকাও জরিমানা দেব না বলেছি আমি৷ তা সত্ত্বেও ক্রমাগত আমার উপর চাপ দিয়ে চলেছেন খাপ প্রধান৷ এমনকী আমাকে এবং আমার স্ত্রীকে গ্রামের অনুষ্ঠানেও ঢুকতে দেওয়া হয়নি৷’’
এর পরেই থিমামপেট্টাই থানায় অভিযোগ দায়ের করেন কানাগরাজ৷ তদন্তের মুখে পড়ে জরিমানা চাওয়ার কথা অস্বীকার করেন খাপ পঞ্চায়েত প্রধান এল্লাপ্পান এবং নগেশ৷ কিন্তু এর পরেই ফের ভোলবদলে জরিমানা দাবি করেন তাঁরা৷ এই ঘটনায় দুটি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।