কলকাতা: ‘বাপি বাড়ি যা’..কি ভাবছেন আপনার পাশের বাড়ির বাপির বাবা খেলার মাঠ থেকে জোর করে পড়তে বসার জন্য ছেলেকে বাড়ি পাঠাচ্ছেন? না মশাই! এ ‘বাপি’ বাড়ি যাচ্ছে ‘দাদা’র হাত ধরে আপনারই ড্রইংরুমের বোকাবাক্সে। ‘দাদাগিরি আনলিমিটেড  সিজন ৫’ নিয়ে স্ট্রেট ব্যাটে ছক্কা হাঁকাতে ফের আজ রাত থেকেই টিভিতে নামছেন বেহালার বাঁহাতি। অপেক্ষার মাত্র আর কয়েক ঘন্টা।
গত কয়েক মাস ধরে পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলা থেকে  ইচ্ছুক অংশগ্রহণকারীদের অডিশন নেওয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে থেকেই চূড়ান্ত  প্রার্থীদের নিয়ে শুরু হচ্ছে নতুন সিজন।
গত কয়েক বছরে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় আর দাদাগিরি প্রায় সমার্থক হয়ে গিয়েছে। মাঝে একটি সিজনে মিঠুন চক্রবর্তী সঞ্চালক হলেও সেই টিআরপি গ্রাফই বুঝিয়ে দিয়েছে সঞ্চালক হিসাবে ‘দাদা’-কেই চাইছে আমজনতা। জনতা-জনার্দনের দাবি মেনেই সেই  জায়গায় সৌরভকে ফিরিয়ে আনে চ্যানেল কর্তৃপক্ষ। তাঁর স্বভাবসিদ্ধ সহজ পরিবেশনা দর্শকদের  মন ছুঁয়ে যায়। সৌরভের সঞ্চালনার সাবলীলতা বয়স নির্বিশেষে সকলের কাছেই  সমান গ্রহণযোগ্য। ফের শুরু হচ্ছে এই মজাদার গেম শো। ‘দাদা’র গুগলির জন্য আপনি রেডি তো?

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।