ভুবনেশ্বরঃ সরকারি কর্মীদের জন্যে সুখবর। পাঁচ শতাংশ মহার্ঘ ভাতা ঘোষণা করল রাজ্য সরকার। সপ্তম বেতন কমিশনের সুপারিশ মেনে রাজ্যের সরকারি কর্মীদের জন্যে এই মহার্ঘ ভাতা ঘোষণা করেছে ওডিশা সরকার। গত সোমবার এই সংক্রান্ত ফাইলে সই করেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক। এরপরেই সম্প্রতি এই সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্তে খুশি সে রাজ্যের সরকারি কর্মীরা। নবীন পট্টনায়কের এই সিদ্ধান্তে সে রাজ্যের প্রায় লক্ষাধিক সরকারি কর্মী উপকৃত হবেন। পাশাপাশি এর সুবিধা ভোগ করবেন রাজ্যের প্রায় লক্ষাধিক পেনশনব ভোগীও।

জানা গিয়েছে, জারি করা বিজ্ঞপ্তিতে পাঁচ শতাংশ মহার্ঘ ভাতা ঘোষণা করা হয়েছে। এবং তা কার্যকর হবে চলতি বছর অর্থাৎ ২০২০ সালের ১লা জানুয়ারি থেকে। আগামী মাস অর্থাৎ মার্চ মাস থেকেই বর্ধিত হারে বেতন পাবেন সরকারি কর্মীরা। বাকি টাকা এরিয়ার হিসাবে মিটিয়ে দেওয়া হবে। যদিও সরকারি কর্মচারীদের একাংশ রাজ্যের এই সিদ্ধান্তে অখুশি। তাঁদের পালটা দাবি, দীর্ঘদিন পর মহার্ঘ ভাতা ঘোষণা করা হয়েছে।

কিন্তু তা কার্যকর করা হচ্ছে এই বছর থেকে। এই সিদ্ধান্তে ক্ষতিগ্রস্ত হবে সরকারি কর্মচারী এবং তাঁদের পরিবার। ফলে ২০১৯ সালের ১ লা জুলাই থেকে মহার্ঘ ভাতা কার্যকর করার জন্যে রাজ্যের কাছে দাবি জানিয়েছেন সরকারি কর্মীরা। যদিও বিষয়টি নিয়ে পরে ভেবে দেখার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে সরকারের তরফে।

সূত্রে জানা গিয়েছে, পাঁচ শতাংশ ডিএ দিতে গেলে রাজ্য সরকারের উপর প্রবল আর্থিক বোঝা চাপবে। বাড়তি প্রায় লক্ষাধিক টাকা খরচ হবে কোষাগার থেকে।

অন্যদিকে, জানা যাচ্ছে, কেন্দ্রিয় সরকারি কর্মচারীদের জন্যে নুন্যতম ৪ শতাংশ ডিএ ঘোষণা করা হতে পারে। আর তা করা হলে এক ধাক্কায় ১৭ শতাংশ থেকে ২১ শতাংশে পৌঁছে যেতে পারে কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের মহার্ঘ ভাতা। এর ফলে ১ কোটিরও বেশি কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারী এবং পেনশনভোগীরা উপকৃত হবেন। বছরে দুবার কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের ডিএ বৃদ্ধি করে সরকার। সেই মতো নতুন বছর অর্থাৎ ২০২০ সালের প্রথম ডিএ ঘোষণা করতে চলেছে মোদী সরকার। ইতিমধ্যে প্রাথমিক আলোচনা সেরে ফেলেছে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রক। খুব শীঘ্রই সরকার কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের জন্যে এই বড় ঘোষণা করতে পারে।